Connect with us

খবর

গৃহঋণের ইএমআই দিতে ব্যর্থ? জানুন কী থেকে কী হতে পারে

এক বার ৬০ দিন অতিক্রান্ত হয়ে গেলে ঋণগ্রহীতা যদি মীমাংসা না করেন, তা হলে আদালতের হস্তক্ষেপ ছাড়াই ব্যাঙ্ক ওই বন্ধককৃত সম্পত্তির অধিকারী হতে পারে।

Published

on

বিবি ডেস্ক: গৃহঋণ (Home loan) পরিশোধ দীর্ঘমেয়াদি ব্যাপার। সাধারণত, ১৫-২০ বছর ধরে এই ঋণ মেটাতে হয়। সময়মতো মাসিক কিস্তি (EMI) জমা করা বিভিন্ন কারণে গুরুত্বপূর্ণ।

এই দীর্ঘ সময়ে অপ্রত্যাশিত কোনো কারণে ইএমআই মিস হয়ে যেতেই পারে। আর্থিক সমস্যার বহর তো কম নয়! কিন্তু সময়মতো ইএমআই না দেওয়ার কারণে ঋণগ্রহীতার ঘাড়ে চেয়ে যায় জরিমানার বোঝা। একই সঙ্গে প্রভাব পড়তে পারে ক্রেডিট কার্ডেও।

প্রথম বার ইএমআই জমা না করলে

বলে রাখা ভালো, কেউ যখন প্রথম বারের জন্য গৃহঋণে ডিফল্ট করেন, ঋণদাতা সাধারণত এসএমএস, ইমেল বা এমনকী কলের মাধ্যমে মাসিক কিস্তি কথা মনে করিয়ে দিয়ে একটি সতর্কতাবার্তা পাঠায়।

Advertisement

মাসিক কিস্তি জমা দিতে দেরি হল ব্যাঙ্ক লেট ফি বা জরিমানা চার্জও নিতে পারে। এই জরিমানাগুলি সাধারণত অতিরিক্ত বকেয়া পরিমাণের ১ -২ শতাংশ হয়। অর্থাৎ, ইএমআই-র টাকা ছাড়াও অতিরিক্ত ওই টাকা মেটাতে হয়।

দ্বিতীয় বার ইএমআই দিতে ব্যর্থ হলে

যখন কেউ দ্বিতীয় বার ইএমআই দিতে ব্যর্থ হন, তখন ব্যাঙ্ক তাঁকে একটি রিমাইন্ডার পাঠাবে এবং যত তাড়াতাড়ি সম্ভব বকেয়া মাসিক কিস্তি মিটিয়ে দেওয়ার কথা বলতে পারে।

এর পর ঘটনা যে দিকে এগোবে

এর পর যদি কেউ টানা তৃতীয় বার বকেয়া অর্থ পরিশোধ করতে ব্যর্থ হন, তা হলে ব্যাঙ্ক বা আর্থিক প্রতিষ্ঠান ঋণটিকে একটি নন-পারফর্মিং অ্যাসেট (NPA) হিসাবে শ্রেণিবদ্ধ করতে পারে।

Advertisement

এর পরে, ঋণদাতা ২০০২ সালের আর্থিক সম্পদের সুরক্ষা এবং পুনর্গঠন এবং সিকিউরিটিজ ইন্টারেস্ট অ্যাক্ট (SARFAESI)-এর অধীনে খেলাপির বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা শুরু করে।

ব্যাঙ্ক শীঘ্রই বকেয়া পুনরুদ্ধারের প্রক্রিয়া শুরু করে এবং ৬০ দিনের মধ্যে বকেয়া নিষ্পত্তি করতে বলে ঋণগ্রহীতাকে আইনি নোটিশ পাঠায়।

বন্ধককৃত সম্পত্তির অধিকার দখল

গৃহঋণ আদতে একটি সুরক্ষিত ঋণ। কারণ, এই ঋণের ক্ষেত্রে ঋণগ্রহীতাকে সম্পত্তি জামানত রাখতে হয়। ৬০ দিনের মধ্যে বকেয়া পরিশোধ করতে না পারলে আইন অনুযায়ী, সেই জামানতের দখল নেওয়ার অধিকার রয়েছে ব্যাঙ্কের।

Advertisement

মনে রাখা ভালো, আদালতের হস্তক্ষেপ ছাড়াই ব্যাঙ্ক ওই বন্ধককৃত সম্পত্তির অধিকারী হতে পারে। এক বার ৬০ দিন অতিক্রান্ত হয়ে গেলে ঋণগ্রহীতা যদি মীমাংসা না করেন, তা হলে বন্ধককৃত সম্পদের নিলাম করার জন্য নোটিশ পাঠায় ব্যাঙ্ক।

আরও পড়ুন: টার্ম ইন্সিওরেন্স পলিসি কেনার আগে এই বিষয়গুলো জেনে নিন

Advertisement

খবর

অনেকটাই নামল আর্থিক বৃদ্ধির হার, কারণ কি আরবিআইয়ের সুদ-নীতি?

জুলাই-সেপ্টেম্বরে দেশে আর্থিক বৃদ্ধির হার নামল ৬.৩ শতাংশে। গত বছর ওই সময় তা ছিল ৮.৪ শতাংশ। চলতি অর্থবর্ষের প্রথম তিন মাসে ছুঁয়েছিল ১৩.৫ শতাংশ।

Published

on

RBI

নয়াদিল্লি: মূল্যবৃদ্ধিকে (Inflation) নিয়ন্ত্রণে রাখতে রিজার্ভ ব্যাঙ্ক (আরবিআই) (RBI) লাগাতার সুদ বাড়িয়েছে। এর ফলে যে দেশের আর্থিক বৃদ্ধি (Economic Growth) কমতে পারে, সে বিষয়ে সাবধান করেছিলেন একাধিক অর্থনীতিবিদ। সেই আশঙ্কাই এ বার সত্যি হল। চড়া মূল্যবৃদ্ধি এবং বাড়তি সুদের ধাক্কায় কারখানার উৎপাদন কমল। তার ফলে জুলাই-সেপ্টেম্বরে দেশে আর্থিক বৃদ্ধির হার নামল ৬.৩ শতাংশে। গত বছর ওই সময় তা ছিল ৮.৪ শতাংশ। চলতি অর্থবর্ষের প্রথম তিন মাসে ছুঁয়েছিল ১৩.৫ শতাংশ।

কেন কমল আর্থিক বৃদ্ধি

অর্থনীতিবিদদের একটা বড় অংশের দাবি, করোনায় গত বছর এপ্রিল-জুনে জিডিপি-র (GDP) বহর অনেকটাই কম ছিল। তার নিরিখে চলতি বছরের ওই তিন মাসে জিডিপি বৃদ্ধির হার বেশি চড়া দেখিয়েছে। সেই নিচু ভিতের সুবিধা জুলাই-সেপ্টেম্বরে তেমন মেলেনি। দুই ত্রৈমাসিক মিলিয়ে অর্থবর্ষের প্রথম ছ’মাসে বৃদ্ধি ৯.৭ শতাংশ। কিন্তু অর্থনীতিবিদদের আশঙ্কা, মূল্যবৃদ্ধি ও সুদের ধাক্কায় শেষ ছ’মাসে তা আরও কমতে পারে।

আশঙ্কা যে অমূলক নয়, তা স্পষ্ট আজই কেন্দ্র প্রকাশিত পরিকাঠামো বৃদ্ধির পরিসংখ্যানে। যা বলছে গত মাসে আটটি মূল পরিকাঠামো ক্ষেত্রে বৃদ্ধি হয়েছে মাত্র ০.১ শতাংশ যা ২০ মাসে সর্বনিম্ন। সেপ্টেম্বরে এই হার ছিল ৭.৮ শতাংশ। অশো‌ধিত তেল, প্রাকৃতিক গ্যাস, শোধনাগারের পণ্য, সিমেন্টের উৎপাদন কমেছে।

Advertisement

কী বলছেন অর্থনীতিবিদরা

উপদেষ্টা ইক্রার (ICRA) মুখ্য অর্থনীতিবিদ অদিতি নায়ারের বক্তব্য, ‘‘আর্থিক বৃদ্ধি মূলত কেনাকাটায় খরচের ফলে চাঙ্গা হয়েছে। কিন্তু সুদের পিছনে খরচ ছাড়া রাজস্ব খাতে ব্যয় কমেছে।’’ অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামন (Nirmala Sitaraman) জানিয়েছেন, গত দু’বারের মতো আগামী বাজেটেও পরিকাঠামোয় খরচ বাড়াবেন। তাঁর দাবি, বেসরকারি লগ্নি আসার ইঙ্গিত মিলেছে। তবে প্রাক্তন অর্থমন্ত্রী পি চিদম্বরমের (P Chidambaram) অভিযোগ, ‘‘লগ্নির পরিবেশ নষ্ট হয়েছে। নতুন বিনিয়োগের খিদে কম। আর্থিক বৃদ্ধির জন্য হয়তো এখন আরও বেশি লগ্নি করতে হচ্ছে।’’

আরবিআই (RBI) বলেছে, অক্টোবর-ডিসেম্বর ও জানুয়ারি-মার্চে বৃদ্ধি দাঁড়াবে ৪.৬ শতাংশ। তবে প্রাক্তন অর্থসচিব সুভাষচন্দ্র গর্গ বলেন, ‘‘এই সময়ে তা ৪.৫ শতাংশেরও কম হবে। তিন বছরে বার্ষিক বৃদ্ধি মাত্র ১.৮২ শতাংশ। ভারতের অর্থনীতি নতুন করে কম বৃদ্ধির ফাঁদে পড়ছে। বেশি দেরি হওয়ার আগে সমস্যা চিহ্নিত করে সংস্কার করা জরুরি।’’

কেন্দ্রের মুখ্য আর্থিক উপদেষ্টা ভি অনন্ত নাগেশ্বরণের যদিও দাবি, এই অর্থবর্ষে ৬.৮-৭ শতাংশ বৃদ্ধি ছোঁবে দেশ। কিন্তু চিদম্বরমের মতে, ‘‘অক্টোবর-ডিসেম্বরে জিডিপি অনেকটাই কমবে। দেশের বাইরের ও ভিতরের পরিস্থিতি তাকে টেনে নামাচ্ছে। হতাশার বিষয় কেন্দ্র বাইরের অবস্থা নিয়ে অসহায়। ভিতরের সমস্যা অস্বীকার করছে।’’

Advertisement

আরও পড়ুন: আর্থিক বৃদ্ধি কমছেই, কিন্তু তা কতটা? নজর এখন সে দিকেই

Continue Reading

খবর

সামান্য কমল গ্রামের বেকারত্ব, দুশ্চিন্তা বাড়িয়ে অনেকটাই বাড়ল শহরে

গোটা দেশে তিন মাসের সর্বোচ্চ হল বেকারত্ব। প্রশ্ন উঠছে, আর্থিক কর্মকাণ্ড বাড়লেও কাজের বাজার চাঙ্গা হচ্ছে না কেন?

Published

on

নয়াদিল্লি: দেশে আবার বাড়ল বেকারত্বের (Unemployment) হার। গ্রামে তা সামান্য কমলেও শহরে বেকারত্ব (Unemployment) অনেকটাই বেড়ে যাওয়ায় সার্বিক ভাবে ছবিটা থাকল খারাপই। গ্রামাঞ্চলে বেকারত্বের হার মাথা তুলতে থাকায় উদ্বেগ বাড়ছিল সমস্ত মহলে। সম্প্রতি তা সামান্য কমলেও, দুশ্চিন্তা বাড়ল শহর নিয়ে। আর তার হাত ধরেই গোটা দেশে তিন মাসের সর্বোচ্চ হল বেকারত্ব। প্রশ্ন উঠছে, আর্থিক কর্মকাণ্ড বাড়লেও কাজের বাজার চাঙ্গা হচ্ছে না কেন?

কী বলছে রিপোর্ট

উপদেষ্টা সংস্থা সিএমআইই-র (CMII) রিপোর্ট বলছে, নভেম্বরে দেশে বেকারত্বের হার ফের ৮ শতাংশ। গ্রামে তা ৮.০৪ শতাংশ থেকে ৭.৫৫ শতাংশে নামলেও, শহরে ৭.১২ শতাংশ থেকে বেড়ে হয়েছে ৯ শতাংশ ছুঁইছুঁই। ওয়াকিবহাল মহলের বক্তব্য, পরিস্থিতি সুবিধার নয় আঁচ করেই গ্রামাঞ্চলে কর্মসংস্থান বাড়াতে মাঠে নামতে চাইছে কেন্দ্র। সরকারি সূত্রের ইঙ্গিত, ১০০ দিনের কাজের আর্থিক বরাদ্দ বৃদ্ধির কথা ভাবছে তারা। এরই মধ্যে রবিশস্যের চাষ শুরু হওয়ায় কিছুটা হলেও কাজ এসেছে মানুষের হাতে। কিন্তু শহরের অবস্থা আলাদা। সেখানে মূলত পরিষেবা ক্ষেত্রের কাঁধে চেপে আর্থিক কর্মকাণ্ডে গতি এলেও কর্মী নিয়োগের ঝুঁকি নিতে চাইছে না বহু সংস্থা। কারণ, আর্থিক অনিশ্চয়তা। সম্প্রতি দেশের মূল আটটি পরিকাঠামো ক্ষেত্রে (Infrastructure Sector) উৎপাদন শ্লথ হওয়ার ছবিও স্পষ্ট হয়েছে কেন্দ্রের অক্টোবরের রিপোর্টে। সেখানে বৃদ্ধির হার নামমাত্র (০.১ শতাংশ)। সব মিলিয়ে ডামাডোল বেড়েছে কাজের বাজারেও।

Advertisement

কেন বাড়ছে বেকারত্ব

আর্থিক বিশেষজ্ঞ অনির্বাণ দত্ত বলেন, চড়া মূল্যবৃদ্ধি চাহিদা কমিয়েছে। আর সুদের হার বৃদ্ধি রুখেছে শিল্পের সম্প্রসারণ। উৎপাদনেও ধাক্কা লাগছে। ফলে বাড়ছে না কর্মসংস্থান। দক্ষ এবং আধা-দক্ষ কর্মী নিয়োগ করতে পারে এমন বড় মাপের নতুন সংস্থা তৈরি হয়নি বহু দিন। উল্টে অ্যামাজন, টুইটার-সহ অনেক পরিষেবা সংস্থা কর্মী ছাঁটাই করেছে। অথচ কাজের খোঁজ বেড়েছে। ফলে চড়া বেকারত্ব।

অনেকে মনে করিয়ে দিচ্ছেন, সম্প্রতি জাতীয় পরিসংখ্যান দফতরের (এনএসও) রিপোর্টেও (NSO Report) শহরাঞ্চলের কাজের মলিন পরিস্থিতির ছবিই ফুটে উঠেছে। সেখানে জানানো হয়েছে, গত জুলাই-সেপ্টেম্বরে শহরে ১৫ বছর কিংবা তার বেশি বয়সিদের মধ্যে বেকারত্বের হার ছিল ৭.২ শতাংশ। পুরুষদের তুলনায় মহিলাদের অবস্থা অনেকটাই খারাপ।

Advertisement

আরও পড়ুন: ই-রুপি কী? এর সুবিধা কী, অসুবিধাই বা কী?

Continue Reading

খবর

ই-রুপি কী? এর সুবিধা কী, অসুবিধাই বা কী?

আমজনতার কাছে এখনও পরিষ্কার নয় এই মুদ্রা ঠিক কী? কী ভাবে এটি কাজ করবে? এর সুবিধা, অসুবিধাই বা কী?

Published

on

বিবি ডেস্ক: অবশেষে ভারতের বাজারে এল ই-রুপি (E Rupee)। আগামী কাল থেকে দেশের বাছাই করা চার শহরে শুরু হবে এই ডিজিটাল মুদ্রা (Digital Rupee) পরিষেবা। রিজার্ভ ব্যাঙ্কের (Reserve Bank Of India) দাবি, এর ফলে নগদ ছাপানোর খরচ কমবে। পাশাপশি নগদে লেনদেনের উপর নজর রাখাও সহজ হবে। কিন্তু আমজনতার কাছে এখনও পরিষ্কার নয় এই মুদ্রা ঠিক কী? কী ভাবে এটি কাজ করবে? এর সুবিধা, অসুবিধাই বা কী?

ই-টাকা কী

ই-টাকা (E Rupee) হল আমরা যে নোট লেনদেনের জন্য ব্যবহার করি তার ডিজিটাল রূপ। এর জন্য ব্যবহারকারীর ব্যাঙ্কে অ্যাকাউন্ট থাকা জরুরি নয়। এই টাকা ম্যানিব্যাগের বদলে থাকবে আপনার মোবাইলের ডিজিটাল ওয়ালেটে। নির্দিষ্ট ব্যাঙ্কগুলির ই-টাকার ওয়ালেট আপনাকে মোবাইলে ডাউনলোড করতে হবে।

আপনার টাকা আপনি ই-টাকায় বদলে এই ওয়ালেটে রাখতে পারবেন এবং তা ব্যবহার করতে পারবেন প্রথাগত টাকা লেনদেন যে ভাবে করেন সে ভাবেই। শুধু ম্যানিব্যাগ থেকে নোট না বার করে আপনার ওয়ালেট থেকে অন্যের ওয়ালেটে তা পাঠিয়ে দিতে হবে।

Advertisement

ব্যাঙ্কের অ্যাকাউন্টেও নোটের বদলে ই-টাকা জমা দিতে পারবেন। এখন যে ভাবে কিউআর কোড (QR Code) স্ক্যান করে আপনি ওয়ালেট থেকে টাকা দেন, ঠিক সে ভাবেই লেনদেন করতে পারবেন। অথবা প্রাপকের ওয়ালেট আইডি-তে পাঠাতে পারবেন ই-টাকা (E Rupee)। সুবিধাটা হল এই লেনদেন ব্যাঙ্কের অ্যাকাউন্ট নির্ভর নয়। নগদে যে ভাবে বাজার করেন, সে ভাবেই ব্যবহার করবেন এই ওয়ালেট। ফারাক হবে শুধু মাধ্যমের।

কেন ই-টাকা

এর ফলে দেশের টাকা ছাপার খরচ কমবে। কিন্তু টাকার উপর শীর্ষ ব্যাঙ্কের সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রণ থাকবে। এর ফলে নগদ বয়ে বেরানোর ঝক্কিও থাকবে না। প্রথাগত নগদের লেনদেনের উপর সরকারের নজরদারি যেমন কঠিন, তা কিন্তু এই লেনদেনে থাকবে না।

কোন কোন দেশে ই-মুদ্রা চালু আছে

বাহামাস, সেন্ট কিটস, গ্রেনাডা, অ্যান্টিগার মতো কয়েকটি দেশে ইতিমধ্যেই চালু হয়ে গিয়েছে ই-মুদ্রা। রাশিয়ায় পরীক্ষামূলক ব্যবহার শেষ হয়ে সবার ব্যবহারের জন্য চালু হওয়ার রাস্তা। চিনও তৈরি। বিশ্বের অন্যান্য দেশগুলিও এ নিয়ে ভাবনা চিন্তা করছে।

Advertisement

সুবিধা এবং অসুবিধা

ডিজিটাল লেনদেনের বর্তমান ব্যবস্থায় প্রতিটি লেনদেনের জন্য আপনাকে একটা কমিশন দিতে হয় যার ওয়ালেট ব্যবহার করছেন তাকে। ক্রেডিট বা ডেবিট কার্ড (Credit Card) ব্যবহার করলেও একই ভাবে আপনাকে কিছু দাম দিতে হয় যার কার্ড ব্যবহার করছেন তাকে। ই-টাকার (E Rupee) লেনদেনে এই খরচ থাকবে না বলে শীর্ষ ব্যাঙ্কের দাবি। ই-টাকায় (E Rupee) আপনি তাৎক্ষণিক দাম চোকানোর সুবিধা পাবেন এবং কোনও তৃতীয় মাধ্যম দিয়ে সেই লেনদেন পরিচালিত হবে না। ঠিক যে ভাবে নগদ লেনদেন পরিচালিত হয় সে ভাবেই চলবে গোটা প্রক্রিয়াটি। প্রয়োজনে লেনদেনের উপর সরকার নজরও রাখতে পারবে সহজে। আপনার মানিব্যাগে নগদ ফুরানোর চাপও থাকবে না। ঘন ঘন এটিএমে দৌড়নোর চাপও কমে যাবে।

আরও পড়ুন: ডিজিটাল মুদ্রা চালু ১ ডিসেম্বর, জানুন কোন কোন ব্যাঙ্ক থেকে পাওয়া যাবে

Advertisement
Continue Reading

Trending