Covid-19 Vaccine: সেরাম ইনস্টিটিউট, ভারত বায়োটেককে ৪,৫০০ কোটি টাকার ঋণ অনুমোদন কেন্দ্রের

central finance minister
কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী। ফাইল চিত্র।

সেরামের জন্য ৩,০০০ কোটি এবং ভারত বায়োটেকের জন্য ১,৫০০ কোটির তহবিলে ছাড়পত্র দিয়েছে অর্থমন্ত্রক।

বিবি ডেস্ক: কোভিড-১৯ ভ্যাকসিন (Covid-19 Vaccine) প্রস্তুতকারক সংস্থা সেরাম ইনস্টিটিউট এবং ভারত বায়োটেককে তহবিল অনুমোদনের নীতিগত অনুমোদন দিল কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রক। সোমবার একটি রিপোর্টে বলা হয়েছে, প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, কোভিড-১৯ মোকাবিলার দায়িত্বে থাকা মন্ত্রীগোষ্ঠীর মাধ্যমে এই তহবিল মঞ্জুর করা হবে। ভ্যাকসিন উৎপাদন বাড়ানোর জন্য দু’টি সংস্থাকে এই তহবিল সরবরাহ করা হবে।

কে কত টাকা পাবে?

সেরাম কর্ণধার আদর পুনাওয়ালা এক মাসে ১০ কোটিরও বেশি পরিমাণে কোভিড-১৯ ভ্যাকসিন উৎপাদনের ক্ষমতা বাড়ানোর জন্য সরকারকে ৩,০০০ কোটি অনুদানের জন্য অনুরোধ করেছিলেন। জানা গিয়েছে, সেরামের জন্য ৩,০০০ কোটি এবং ভারত বায়োটেকের জন্য ১,৫০০ কোটি টাকা ঋণের ছাড়পত্র দিয়েছে অর্থমন্ত্রক। রিপোর্টে আরও বলা হয়েছে, তহবিলটি শীঘ্রই সরবরাহ করা হবে।

কী বলছেন অর্থমন্ত্রী?

সোমবার কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারমন বলেছেন, তিনি কোভিড-১৯ পরিস্থিতি মোকাবিলার বিষয়ে ভারতীয় সংস্থাগুলির উদ্বেগ নিয়ে বিভিন্ন বণিক সংগঠনের সঙ্গে আলোচনা করেছেন। সীতরমন আরও বলেছেন, মহামারির মধ্যে জীবন বাঁচাতে এবং জীবিকা রক্ষার জন্য রাজ্য সরকারগুলির সঙ্গে কাজ চালিয়ে যাবে কেন্দ্র। তিনি টুইটারে লেখেন, “ব্যবসায়িক সংস্থা এবং বণিক সংগঠনগুলির সঙ্গে টেলিফোনে কথোপকথনের মাধ্যমে তাদের বিষয়ে তথ্য জেনেছি। ভারত সরকার কোভিড-১৯ মোকাবিলায় সমস্ত রকমের পদক্ষেপ নিচ্ছে। জীবন-জীবিকার জন্য রাজ্য সরকাগুলির সঙ্গে কাজ চালিয়ে যাবে কেন্দ্র”।

ভারত বায়োটেককে ৬৫ কোটি টাকা

দিনদুয়েক আগেই জানা যায়, ভারত বায়োটেক যাতে কোভ্যাক্সিন উৎপাদন বাড়াতে পারে তার জন্য ৬৫ কোটি টাকা আর্থিক সাহায্যের কথা ঘোষণা করেছে কেন্দ্র। গত শুক্রবার এই মর্মে একটি বিবৃতিও পেশ করা হয় কেন্দ্রের তরফে। কেন্দ্রের তরফে বলা হয়, এখন রোজ যে পরিমাণ টিকা উৎপাদন হচ্ছে, মে-জুন মাসের তা দ্বিগুণ করার লক্ষ্যমাত্রা নেওয়া হয়েছে। জুলাই-আগস্টের মধ্যে তা ছ’-সাতগুণ করার কথা ভাবা হচ্ছে। টিকার চাহিদা মেটাতেই লক্ষমাত্রা বাড়ানো হয়েছে বলে জানা গিয়েছে। এপ্রিলে গড়ে ১ কোটি টিকার ডোজ তৈরি হচ্ছে। এ বছর সেপ্টেম্বরের মধ্যে সেই সংখ্যাটা ১০ কোটিতে নিয়ে যেতে চাইছে কেন্দ্র। টিকা তৈরির প্রক্রিয়াতে ত্বরান্বিত করতেই এই আর্থিক সাহায্য বলে জানা গিয়েছে।

আরও পড়তে পারেন: কর্মীদের কোভিড টিকাকরণের খরচ দেবে রিলায়েন্স

Be the first to comment

মন্তব্য করুন

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.