শেয়ারে বিনিয়োগ করবেন? রেকর্ড উচ্চতায় পৌঁছে যাওয়া বাজারে বিনিয়োগের সময় এই বিষয়গুলি মাথায় রাখুন

Stock Market

শেয়ারবাজারে নতুন বা পুরনো বিনিয়োগকারী, বিনিয়োগের সময় এই বিষয়গুলি মাথায় রাখুন।

বিবি ডেস্ক : করোনা অতিমারীর আবহেও গত কয়েকমাস ধরে শেয়ার বাজার বেশ চাঙ্গা রয়েছে। জুন মাসেও রেকর্ড ছুঁয়েছে বাজার। তবে এই বাজারে বিনিয়োগের সিন্ধান্ত নিতে হবে কিন্তু বুঝেশুনে। এ নিয়ে EVP & Head, Edelweiss Personal Wealth, রাহুল জৈন মানি কন্ট্রোলে  কিছু পরামর্শ দিয়েছেন। বাংলাবিজের পাঠকদের জন্য সেই পরামর্শগুলি তুলে ধরা হল।

সময় নির্ধারণ না কি সময় কোনটা গুরুত্বপূর্ণ

বাজারের সময় নির্ধারণের চেয়ে বাজারে সময় দেওয়া বেশি গুরুত্বপূর্ণ। কারণ, অধিকাংশ সফল বিনিয়োগকারীও আগাম বলতে পারবেন না বাজার উঠবে না নামবে। তাই শেয়ার কেনাবেচার সহজ উপায় হল, দাম কমে কেনা এবং বেশিতে বেচা।

কারণ, কেউ আগাম বলতে পারবেন না বাজারে কী হতে চলেছে। বাজারের উঠা-পড়ার ক্ষেত্রে অনেকগুলি বিষয় নির্ভর করে। এর অধিকাংশগুলির নিয়ন্ত্রণ বিনোয়গকারীর হাতের বাইরে থাকে। তাই আপনি বাজারে বেশি সময় দিন, সময় নির্ধারণের চেয়ে।

সময় নির্ধারণ করতে গিয়ে অনেক সময় ‘ভুল কল’ হয়ে যেতে পারে। ফলে আপনার লাভের চেয়ে ক্ষতি হতে পারে। 

মূলগত ভাবে শক্তপোক্ত শেয়ারগুলোকে বেছে নিন

আপনি নতুন বা পুরোনা, যে ধরনের বিনিয়োগকারী হোন না কেন, চেষ্টা করুন এমন শেয়ারগুলি বেছে নিতে যাদের ভিত খুব শক্ত।  নিজের ক্ষেত্রে সেই কোম্পানি যাতে শক্ত খেলোয়াড় হয় এবং যাদের ব্যালেন্স সিট এবং কর্পোরেট গর্ভনেন্স বেশ শক্তপোক্ত।

আপনি যদি আপনার সম্পদের অবিচ্ছিন্ন বৃদ্ধি চান, তবে বাজারে শীর্ষ ১০০টি সংস্থায় বিনিয়োগ করতে পারেন। এই সংস্থাগুলিতে বিনিয়োগ করলে আপনার পোর্টফোলিও স্থিতিশীল হবে এবং বাজারের খারাপ অবস্থার সময় আপনার ক্ষতি কিছুটা হলেও রোধ করবে।

 কেনার সময় সর্বদা স্টকের দীর্ঘমেয়াদী পারফরমেন্সের উপর নজর রাখুন।

আপনার প্রত্যাশাকে বাস্তবের মাটিতে রাখুন

সাধারণ ভাবে ইক্যুইটিগুলি দীর্ঘমেয়াদের বেশি আয় দেয়, তবু আপনার প্রত্যাশাকে বাস্তাবের মাটিতে রাখাই বাস্তবসম্মত।  দীর্ঘমেয়াদী বিনিয়োগ করলেও মাথায় রাখবেন, ওই ইক্যুইটি থেকে ডবল ডিজিটের (৩০ থেকে ৩৫ শতাংশ) রির্টান আশা করবেন না।  যদি কোনো স্টক সে রকম প্রতিশ্রুতি দেয় তবে সেগুলি কেনা থেকে বিরত থাকা উচিত। তাই প্রত্যাশাগুলোকে চেষ্টা করুন বাস্তবে মাটিতে রাখতে, তাতে বানের সময় ভেসে যাবেন না।

দীর্ঘপথ চলার জন্য মনকে তৈরি রাখুন

ইক্যুইটি বিনিয়োগ ধৈর্য্যের পরীক্ষাও বটে। তাই সার্বধিক লাভ করতে হবে আপনাকে সময় দিতে হবে। দীর্ঘমেয়াদী বিনিয়োগের পরিকল্পনা নিয়ে এগিয়ে চলুন। আপনি যদি মূলগত ভাবে দীর্ঘমেয়াদী বিনিয়োগের কথা ভাবেন তবে, স্বল্প মেয়াদী বিনিয়োগের ইচ্ছা আপনাকে ছেড়ে যাবে না।তাই শেয়ার বাজারে বিনিয়োগে সাফল্য পেতে দীর্ঘমেয়াদী বিনিয়োগের পরিকল্পনা করুন।

বাংলাবিজে-এ আরও পড়তে পারেন

আপনি কি শেয়ার বাজারে বিনিয়োগ করেন? ক্লায়েন্ট কোড, প্যান নিয়ে সেবির বড়োসড়ো সংস্কারের কথা জানুন 

Be the first to comment

মন্তব্য করুন

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.