Connect with us

শেয়ার বাজার

দীপাবলির সন্ধ্যায় এক ঘণ্টার ধামাকা শেয়ার বাজারে! কখন খুলবে, দেখুন পুরো সময়সূচি

দীপাবলির দিন শেয়ার বাজারে বাজার বন্ধ। তবে লক্ষ্মীপুজো উপলক্ষে সন্ধ্যায় এক ঘণ্টা মহরত ট্রেডিংয়ের আয়োজন করা হয়।

Published

on

বিবি ডেস্ক: সোমবার (২৪ অক্টোবর) দিওয়ালির মহরত ট্রেডিং সেশনের জন্য এক ঘণ্টা খোলা থাকবে শেয়ার বাজার (BSE এবং NSE)। নতুন সম্বৎ ২০৭৯-র সূচনা উপলক্ষে এই কেনাবেচার আয়োজন।

এ বছর মহরত ট্রেডিং সেশন শুরু হবে সোমবার সন্ধ্যা ৬.১৫টায় এবং শেষ হবে ৭.১৫টায়। বিশেষ ট্রেডিং উইন্ডোটি হিন্দু ক্যালেন্ডার অনুযায়ী খোলে, নতুন সম্বৎ বা সংবত ২০৭৯-র সূচনা চিহ্নিত করে এই ট্রেডিং সেশন। দীপাবলি এবং মহরত ট্রেডিং দিয়ে নতুন সম্বৎ শুরু হলে সারা বছর ধরে সমৃদ্ধি এবং সম্পদ লাভ হয় বলে অনেকেরই বিশ্বাস।

মহরত ট্রেডিংয়ের সময়সূচি

ব্লক ডিল সেশন – সন্ধ্যে ৫.৪৫টা থেকে সন্ধ্যে ৬টার মধ্যে।

Advertisement

প্রি ওপেনিং সেশন – সন্ধ্যে ৬টা থেকে সন্ধ্যে ৬.০৮টা।

নর্মাল মার্কেট – সন্ধ্যা ৬.১৫টা থেকে ৭.১৫টা পর্যন্ত।

কল অকশন সেশন – সন্ধ্যে ৬.২০টা থেকে সন্ধ্যে ৭.০৫টা।

Advertisement

ক্লোজিং সেশন – সন্ধ্যে ৭.১৫টা থেকে সন্ধ্যে ৭.২৫টা।

কী এই মহরত ট্রেডিং?

দীপাবলির দিন শেয়ার বাজারে বাজার বন্ধ। তবে লক্ষ্মীপুজো উপলক্ষে সন্ধ্যায় এক ঘণ্টা মহরত ট্রেডিংয়ের (Muhurat Trading 2022) আয়োজন করা হয়। সোমবার, সন্ধ্যায় এক ঘণ্টার জন্য মহরত ট্রেডিং সেশন থাকবে। সম্বৎ বর্ষ ২০৭৯-র ওই দিন থেকে শুরু হচ্ছে এবং নতুন বছরের শুরুতে কোনো নতুন কাজ করা বা নতুন বিনিয়োগ করা খুব শুভ বলে মনে করা হয়। সেই জায়গা থেকেই বিশ্বাস, এই দিনে শেয়ারবাজারে মহরত লেনদেন করা খুবই শুভ বলে মনে করা হয়। সে কারণেই প্রতি বছর দীপাবলিতে এক ঘণ্টার জন্য খোলা থাকে শেয়ার বাজার। যাতে বিনিয়োগকারীরা দীপাবলিতে শেয়ার ট্রেডিং করতে পারেন।

যেহেতু দীপাবলিতে লক্ষ্মীপুজো করা হয়, তাই বিনিয়োগকারীদেরও ইচ্ছা থাকে ওই দিনটাতে বিনিয়োগ থেকে দুর্দান্ত রিটার্ন পাওয়ার।এমনও দেখা গিয়েছে, ওই দিন কোনো কোনো স্টকের দাম চারগুণ হারে বেড়েছে। তবে যে শেয়ারে বিনিয়োগ করছেন, সেটা মাল্টিব্যাগার হিসেবে প্রমাণিত হওয়া উচিত।

Advertisement

শেয়ার বাজারের মতিগতি

গত বছর, ২০২১ সালের ৪ নভেম্বর দীপাবলির দিনে মহরত ট্রেডিংয়ের আয়োজন করা হয়েছিল। শেয়ারবাজারের জন্য এই দিনটি খুবই ভালো ছিল। ওই দিন সেনসেক্স ৬০ হাজার ছাড়িয়ে গিয়েছিল। অন্যদিকে, নিফটি ১৭,৯২১-এ বন্ধ হয়েছিল। তার পর থেকে, গত এক বছরে শেয়ারবাজার দেখেছে বিস্তৃত অস্থিরতা।

মুদ্রাস্ফীতি, করোনা অতিমারি, রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ, ডলারের তুলনায় টাকার দরপতন ও অপরিশোধিত তেলের দাম বৃদ্ধির কারণে শেয়ারবাজারে ওঠানামা অব্যাহত রয়েছে। শুক্রবার, সেনসেক্স ১০৪.২৫ পয়েন্ট বেড়ে ৫৯,৩০৭.১৫-তে বন্ধ হয়েছে।

বিনিয়োগের সময় সতর্কতা

তবে আর যাইহোক, সম্পদ বিনিয়োগের সময় সতর্ক হওয়া প্রয়োজন। এক ঘণ্টার মধ্যেই বিপুল বিনিয়োগের নজির রয়েছে অতীতে। ফলে বিনিয়োগের ব্যাপারে সতর্ক থাকাটাও জরুরি। বিনিয়োগের আগে কোনো স্টক সম্পর্কে বিশদ ভাবে জেনে নেওয়া উচিত। বাজার যখন অনেকটাই উপরে উঠে থাকে, তখন মুনাফা তুলে নেওয়ার অংশ হিসেবে প্রফিট বুকিং করে একটা বড়ো অংশ। আর তাতেই উপরে ওঠা কোনো স্টক নিমেষে নীচে পড়ে যেতে পারে।

Advertisement

আরও পড়ুন: মূল্যবৃদ্ধি কমবেই, তবে সময় লাগবে ঋণনীতির সুফল পেতে, বলছেন ঋণনীতি কমিটির সদস্য

খবর

ভারতীয় শেয়ার বাজারের উত্থান অব্যাহত, নতুন রেকর্ড গড়ল সেনসেক্স এবং নিফটি

মঙ্গলবার নতুন রেকর্ড গড়ে ফেলল শেয়ার বাজারের মূল দুই সূচক সেনসেক্স এবং নিফটি ফিফটি।

Published

on

Bombay Stock Exchange

মুম্বই: এক টানা ছ’টি কেনাবেচার দিনে উত্থার অব্য়াহত ভারতীয় শেয়ার বাজারে (Stock Market)। মঙ্গলবার নতুন রেকর্ড গড়ে ফেলল শেয়ার বাজারের মূল দুই সূচক সেনসেক্স (Sensex) এবং নিফটি ফিফটি (Nifty50)।

এ দিন উভয় সূচকই রেকর্ড উচ্চতায় খুলেছে। এই সময়ের মধ্যে সেনসেক্স নিজের সর্বকালের সর্বোচ্চ ৬২,৮৪৯ ছুঁয়েছে এবং নিফটিও ১৮,৬২২-র সর্বকালের সর্বোচ্চ উচ্চতা স্পর্শ করেছে। এই প্রতিবেদন লেখার সময় (বেলা ১২টা) সেনসেক্স ৬২,৭৭৩ এবং নিফটি রয়েছে ১৮,৬৪৬-এ।

তবে এই রেকর্ড উত্থানের পরও বাজার বিশ্লেষকরা বলছেন, এখনই ‘ঝাঁপিয়ে পড়ার’ হওয়ার মতো কারণ নেই। বেশ কিছু ফ্যাক্টর বিচার্য। অপরিশোধিত তেলের দাম, মুদ্রাস্ফীতির গতিপথ এবং ডলারের গতিবিধির উপর নিরবচ্ছিন্ন নজর রাখতে হবে। ভারতীয় বাজার বেশ কিছু দিন ধরেই নীরব ছিল, ফলে ঝাঁপ দেওয়ার মতো হাতে সময় রয়েছে বিনিয়োগকারীদের।

Advertisement

লাভ-ক্ষতির খতিয়ান

নিফটিতে লাভের মুখ দেখেছে অ্যাপোলো হাসপাতাল, হিন্দালকো, এইচইউএল, সিপলা, টাটা স্টিল, ডা. রেড্ডি ল্যাবস, জেএসডব্লিউ স্টিল, টাইটান, ব্রিটানিয়া, সান ফার্মা, আইসিআইসিআই ব্যাঙ্ক, এইচডিএফসি, হিরো মোটোকর্প, আল্ট্রাটেক সিমেন্ট, মাহিন্দ্রা অ্যান্ড মাহিন্দ্রা, অ্যাক্সিস ব্যাঙ্ক, এইচসিএল টেক, এইচডিএফসি ব্যাঙ্ক, নেসলে, আইটিসি, টিসিএস, কোটাক মাহিন্দ্রা, ডিভিস ল্যাবস, গ্রাসিম এবং উইপ্রো।

অন্য দিকে, লোকসানে চলছে টাটা মোটরস, বাজাজ ফিনসার্ভ, বিপিসিএল, পাওয়ার গ্রিড, মারুতি সুজুকি, এল অ্যান্ড টি, এশিয়ান পেইন্টস ইন্ডাসইন্ড ব্যাঙ্ক, রিলায়েন্স, আইচার মোটরস, ইনফোসিস, এইচডিএফসি লাইফ, বাজাজ ফাইন্যান্স, বাজাজ অটো এবং এনটিপিসি।

ডলারের বিপরীতে টাকা

উল্লেখযোগ্য ভাবে, এ দিন এশিয়ার প্রায় সব বাজারই সবুজে লেনদেন করছে। সোমবার মার্কিন বাজারে লেনদেন দেখা দিয়েছিল, এ দিন অবশ্য এশিয়ার বাজারে তার তেমন কোনো প্রভাব নেই।

Advertisement

পাশাপাশি, মঙ্গলবার ডলারের বিপরীতে টাকার দাম বাড়ছে। প্রাথমিক লেনদেনে ডলারের বিপরীতে ৪ পয়সা বেড়ে টাকা পৌঁছেছে ৮১.৬০-এ। ইন্টারব্যাঙ্ক ফরেন এক্সচেঞ্জ অনুসারে, আজ ডলারের বিপরীতে টাকা খোলা হয়েছে ৮১.৫৮-এ। প্রসঙ্গত, সোমবার, ডলারের বিপরীতে ৩ পয়সা বেড়ে ৮১.৬৮-তে বন্ধ হয়েছিল টাকা।

আরও পড়ুন: নিফটি ৫০ সূচক কী? কী ভাবে এটি কাজ করে?

Advertisement
Continue Reading

শেয়ার বাজার

নিফটি ৫০ সূচক কী? কী ভাবে এটি কাজ করে?

দুই এক্সচেঞ্জে সব মিলিয়ে প্রায় পাঁচ হাজার সংস্থা নাথিভুক্ত আছে। কোম্পানিগুলির আচরণ অনুযায়ী এগুলিকে বেশ কয়েকটি শ্রেণিতে ভাগ করা হয়েছে। সেই রকম একটি শ্রেণি হল নিফটি ফিফটি।

Published

on

বিবি ডেস্ক: ভারতের শেয়ার বাজার (Share Market) মূলত দু’টি এক্সচেঞ্জের উপরে কাজ করে। একটি হল এনএসই (NSE) বা ন্যাশনাল স্টক এক্সচেঞ্জ (National Stock Exchange) এবং অপরটি হল বিএসই (BSE) বা বম্বে স্টক এক্সচেঞ্জ (Bombay Stock Exchange)। এই দুই এক্সচেঞ্জে সব মিলিয়ে প্রায় পাঁচ হাজার সংস্থা নাথিভুক্ত আছে। কোম্পানিগুলির আচরণ অনুযায়ী এগুলিকে বেশ কয়েকটি শ্রেণিতে ভাগ করা হয়েছে। সেই রকম একটি শ্রেণি হল নিফটি ফিফটি (Nifty 50)।

নিফটি ৫০ কী

ন্যাশনাল স্টক এক্সচেঞ্জ অব ইন্ডিয়া (এনএসই)-র (NSE) অধীনস্থ এনএসই ইন্ডিসেস লিমিটেডের মালিকানাধীন হল নিফটি ফিফটি (Nifty 50)। এই কোম্পানি নিফটি ফিফটি ছাড়া একশোটিরও বেশি ইকুইটি ইনডেক্স পরিচালনা করে। নিফটি ফিফটি হল পঞ্চাশটি বৃহৎ ক্যাপিটাল স্টকের একটি সমষ্টি। এটি ফ্রি ফ্লোট মার্কেট ক্যাপিটালাইজেশনের (Free Float Market Capitalization) ভিত্তিতে পরিচালিত হয়। ১৯৯৬ সালের ১ এপ্রিল এটিকে ভারতীয় স্টক এক্সচেঞ্জের অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছিল। সেনসেক্সের (Sensex) মতো এটি একটি সাধারণ সূচক, যার মাধ্যমে ভারতীয় অর্থনীতির (Indian Economy) ১৩টি ক্ষেত্রের সঙ্গে জড়িত ৫০টি সক্রিয় সংস্থার বাজারভিত্তিক কার্যক্ষমতা এক সঙ্গে নজর রাখা সম্ভব।

ফ্রি ফ্লোট মার্কেট ক্যাপিটালাইজেশন কী

এখন প্রশ্ন হল এই ফ্রি ফ্লোট মার্কেট ক্যাপিটালাইজেশন কী? সহজ উত্তরে বলা যায়, একটি সংস্থার যতগুলি শেয়ার সাধারণ মানুষের কাছে বেচাকেনার জন্য রয়েছে তার মোট মূল্যকে ফ্রি ফ্লোট মার্কেট ক্যাপিটালাইজেশন বলে। ফ্রি ফ্লোট মার্কেট ক্যাপিটালাইজেশন বার করার সূত্র হল ফ্রি ফ্লোট মার্কেট ক্যাপিটালাইজেশন = ফ্রি ফ্লোট শেয়ারের মোট সংখ্যা × একটি শেয়ারের দাম।

Advertisement

প্রতি বছর মার্চ এবং সেপ্টেম্বর মাসে নিফটি পুনর্গঠিত হয়। প্রতি ছ’মাস অন্তর এই পুনর্গঠন প্রক্রিয়ার মাধ্যমে কোম্পানিগুলির স্টকের গুণমান যাচাই করে নতুন কোনও সংস্থাকে যুক্ত করা বা বাদ দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

সুবিধা ও অসুবিধা

নিফটি ফিফটিতে বিনিয়োগ করতে হলে কোনও বিনিয়োগকারীকে সর্বপ্রথম ডিম্যাট অ্যাকাউন্ট খুলতে হবে এবং একই সঙ্গে স্টকব্রোকারের সঙ্গে ট্রেডিং অ্যাকাউন্ট থাকতে হবে। নিফটি ইনডেক্স ফান্ডে বিনিয়োগ করার সব থেকে বড় সুবিধা হল আপনি প্রতি মাসে আপনার বাজেট অনুযায়ী একটি নির্দিষ্ট পরিমাণ অর্থ বিনিয়োগ করে পঞ্চাশটি নামী কোম্পানির শেয়ারের অংশীদার হতে পারবেন। সেখানে হয়ত এই সব সংস্থাগুলির আলাদা আলাদা শেয়ারের দাম এত বেশি যে তা আপনার সাধ্যের মধ্যে নাও থাকতে পারে।

তবে এখানে ফান্ড ম্যানেজমেন্টের সরাসরি হস্তক্ষেপ না থাকায় সংশ্লিষ্ট বিনিয়োগকারীকে ন্যূনতম মেইনটেনেন্স চার্জ বহন করতে হবে। নিফটি ফিফটিতে বিনিয়োগ করার প্রক্রিয়া খুব সহজ। অর্থাৎ কোনও বিনিয়োগকারী তাঁর সাধ্য মতো বা ইচ্ছে মতো টাকার অঙ্ক বাড়াতে কিংবা কমাতে পারবেন। অথচ এই সুবিধা কিন্তু বেশির ভাগ ফান্ডেই উপলব্ধ নেই।

Advertisement

এখানে বিনিয়োগের একটি অসুবিধা হল এখানে ২-৩ বছরের জন্য বিনিয়োগ করলে তেমন ফল পাওয়া যায় না। দীর্ঘমেয়াদী বিনিয়োগের ক্ষেত্রে নিফটি ফিফটি এক কথায় অতুলনীয়। সে ক্ষেত্রে পরবর্তীকালে দারুণ রিটার্ন পাওয়া যায়। বাৎসরিক আনুমানিক রিটার্ন ১৩ শতাংশ। যদিও এই রিটার্নের পরিমাণ সম্পূর্ণ ভাবে বাজার নির্ভর।

আরও পড়ুন: সর্বকালীন উচ্চতায় সেনসেক্স, কাঙ্ক্ষিত ১৯ হাজারের দিকে নিফটি?

Advertisement
Continue Reading

খবর

সর্বকালীন উচ্চতায় সেনসেক্স, কাঙ্ক্ষিত ১৯ হাজারের দিকে নিফটি?

চলতি সপ্তাহে এই নিয়ে টানা তিন দিন উত্থান। বৃহস্পতিবার সর্বকালীন সেরা রেকর্ড ভারতীয় শেয়ার বাজারে।

Published

on

বিবি ডেস্ক: চলতি সপ্তাহে এই নিয়ে টানা তিন দিন উত্থান। বৃহস্পতিবার সর্বকালীন সেরা রেকর্ড ভারতীয় শেয়ার বাজারে।

এক নজরে সেনসেক্স, নিফটি

এ দিন শেয়ার বাজারে কেনাবেচার শেষে সেনসেক্স বন্ধ হয় ৬২,২৭২.৬৮-এ। বুধবারের তুলনায় এই বৃদ্ধি ১.২৪ শতাংশ, বা ৭৬২.১০ পয়েন্ট এগিয়েছে। এটাই সেনসেক্সের ইতিহাসে সর্বকালীন সেরা রেকর্ড। এর আগে সেনসেক্সের সর্বকালীন রেকর্ড ছিল ৬২,২৪৫.৪৩ পয়েন্ট। গত বছরের ১৯ অক্টোবর সামান্য সময়ের জন্য সেনসেক্স ওই উচ্চতায় পৌঁছে গিয়েছিল। অন্য দিকে, নিফটি ফিফটি সূচক বন্ধ হওয়ার সময় আগের দিনের থেকে ২১৬.৮৫ পয়েন্ট বা ১.১৯ শতাংশ উপরে উঠে পৌঁছেছে ১৮,৪৮৪.১০-এ। এটাও নিফটির সর্বকালীন সর্বোচ্চ উচ্চতা। গত বছরের ১৮ অক্টোবর ১৮,৪৭৭.১০ পয়েন্ট ছুঁয়েছিল নিফটি। তবে এ দিন সেই হার্ডলসও পার হয়ে গেল ৫০ স্টকের এই সূচক।

নেপথ্যে ফেড রিজার্ভ

বুধবার সামান্য অগ্রগতি দেখা গিয়েছিল ভারতীয় শেয়ার বাজারে। তবে এ দিন কোটি কোটি টাকা লাভের অংক গুনেছেন বিনিয়োগকারীরা। বাজার বিশ্লেষকদের মতে, ফেডারেল রিজার্ভ মিটিংয়ের মিনিটগুলি শেয়ার বাজারে বৃদ্ধির জন্য সমর্থন দেখাচ্ছে। ফেড প্রস্তাব করেছে নিজের হার বৃদ্ধির গতি কমিয়ে দিতে পারে। অন্য দিকে, ঝুঁকির হ্রাস পাওয়ার ইঙ্গিতে বিনিয়োগ বৃদ্ধি পেয়েছে ভারতীয় শেয়ার বাজারে। কোটাক সিকিউরিটিজের ইক্যুইটি রিসার্চের প্রধান শ্রীকান্ত চৌহান সংবাদ মাধ্যমের কাছে বলেন, আপাতবৃদ্ধির মূলে রয়েছে ফেড রিজার্ভের সিদ্ধান্ত। মাঝারি গতিতে এগিয়ে যাচ্ছে বৃদ্ধির হার। যা শেষ পর্যন্ত বেঞ্চমার্ক সূচক সেনসেক্স এবং নিফটিকে নতুন সর্বকালের উচ্চতায় নিয়ে যেতে সহায়ক ভূমিকা নিয়েছে। বলে রাখা ভালো, এ দিনই ছিল চলতি মাসের এক্সপায়েরির শেষ দিন। এ ভাবে এগোলে নিফটি যে নিজের কাঙ্ক্ষিত ১৯,০০০-এর দিকে পৌঁছে যেতে পারে, সে ব্যাপারেও আশাপ্রকাশ করছেন বিশেষজ্ঞরা।

Advertisement

সামনে-পিছনে

সেনসেক্সের ৩০টি স্টকের মধ্যে এ দিন সামনের দিকে এগনো অন্যতমগুলির মধ্যে রয়েছে এইচসিএল টেকনোলজিস, ইনফোসিস, উইপ্রো, পাওয়ার গ্রিড, টেক মাহিন্দ্রা, টাটা কনসালট্যান্সি সার্ভিসেস, হিন্দুস্তান ইউনিলিভার, এইচডিএফসি ব্যাঙ্ক এবং মাহিন্দ্রা অ্যান্ড মাহিন্দ্রা। তবে এ দিনের দৌড়ে পিছিয়ে থেকেছে বাজাজ ফিনসার্ভ, টাটা স্টিল, বাজাজ ফিন্যান্স এবং কোটাক মাহিন্দ্রা ব্যাঙ্ক। এ দিন সেনসেক্সের সর্বকালীন উত্থানে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা নিয়েছে জোড়া এইচডিএফসি, ইনফোসিস, টিসিএস এবং রিলায়েন্সের মতো লার্জ ক্যাপগুলি। নাসডাক কম্পোজিট-এ রাতারাতি লাভ ট্র্যাক করে নিফটি আইটি সূচক সবচেয়ে বেশি (২.৬৩ শতাংশ) বৃদ্ধির মুখ দেখেছে এ দিন। হিসেব বলছে, শেষ তিন মাসেরও বেশি সময়কালীন উচ্চতায় লাফ দিয়েছে সূচকটি।

তেলের দামে স্থিতিশীলতা

বিশ্ববাজারে অপরিশোধিত তেলের দামে স্থিতিশীলতা দেখা গিয়েছে। অপরিশোধিত তেলের মূল্যসীমা বিবেচনা করেছে রাশিয়া। পাশাপাশি বেড়েছে চাহিদা। এই দুই চ্যালেঞ্জে ভর করে স্থিতিশীল ছিল তেলের দাম।

Advertisement
Continue Reading

Trending