গাড়ি-বাইকের বৈধ পিইউসি না থাকলেও বিমা-দাবি বাতিল করা যাবে না, নির্দেশ নিয়ন্ত্রক সংস্থার

প্রতীকী ছবি।

বাংলাBiz ডেস্ক: যানবাহনের ‘পলিউশন আন্ডার কন্ট্রোল’ বা পিইউসি (PUC) সার্টিফিকেটের বৈধতা না থাকলেও বিমা সংস্থাগুলি গ্রাহকের দাবি (Claim) খারিজ করতে পারবে না। এ কথা স্পষ্ট করেই জানিয়ে দিল বিমা নিয়ন্ত্রক সংস্থা আইআরডিএআই (IRDAI)।

বছর তিনেক আগেই দূষণ পরীক্ষার পর পিইউসি বাধ্যতামূলক করার কথা বলেছিল জাতীয় পরিবেশ আদালত। ২০১৭ সালের আগস্ট মাসে সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশেও বিমা সংস্থাগুলিকে এ ব্যাপারে নির্দেশ দেওয়া হয়।

সুপ্রিম কোর্ট বলে, “বিমা পলিসি পুনর্নবীকরণের তারিখে বৈধ পিইউসি সার্টিফিকেট না থাকলে গাড়ির বিমা (insurance policy) করার দরকার নেই”।

সুপ্রিম কোর্টের ওই নির্দেশকে সামনে রেখে ২০১৮ সালে আইআরডিএ বিমা সংস্থাগুলির উদ্দেশে জানায়, কোনো যানবাহনের বৈধ পিইউসি সার্টিফিকেট না থাকলে সেটির বিমা পুনর্নবীকরণ করা যাবে না। অর্থাৎ যানবাহনের বিমা পুনর্নবীকরণের জন্য অবশ্যই একটি বৈধ পিইউসি শংসাপত্র থাকতে হবে।

আরও পড়ুন: ‘ঈশ্বরের সৃষ্টি’ করোনা মহামারির প্রভাব জিএসটিতে, ঘাটতি ঠেকবে ২.৩৫ লক্ষ কোটি টাকায়, জানালেন কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী

নিয়ন্ত্রক সংস্থার এ ধরনের নির্দেশিকার পর সাময়িক ভাবে জটিলতার সৃষ্টি হয়। যে কারণে বুধবার একটি নির্দেশিকায় আইআরডিএ স্পষ্ট করে জানিয়ে দেয়, “সম্প্রতি কিছু প্রতিবেদনের জেরে দুর্ঘটনার সময় বৈধ পিইউসি সার্টিফিকেট না থাকলে মোটর বিমা পলিসির অধীনে দাবি পরিশোধযোগ্য নয় বলে বিভ্রান্তি ছড়িয়েছে”।

অর্থাৎ আগের নির্দেশিকাটি বিমা পলিসির পুনর্নবীকরণের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য। তাই বলে গ্রাহকের ক্লেম বা দাবি বাতিল করতে পারবে না বিমা সংস্থাগুলি।

উল্লেখ্য, পিইউসি সার্টিফিকেট সারা ভারতেই সমস্ত যানবাহনের জন্য বাধ্যতামূলক।

পিইউসি কী

গাড়ি থেকে নির্গত কার্বন মনোক্সাইড এবং হাইড্রোকার্বনের মতো দূষণ সৃষ্টিকারী উপাদানের মাত্রার তদারকির জন্য এই সার্টিফিকেট ব্যবহার করা হয়।

গাড়িটির সফল পিইউসি পরীক্ষা করানোর পরে, গাড়ির মালিককে একটি সার্টিফিকেট দেওয়া হয়। এই সার্টিফিকেট ছ’মাসের জন্য বৈধ থাকে।

Be the first to comment

মন্তব্য করুন

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.