Connect with us

স্টার্টআপ

স্টার্টআপের জন্য বড়ো সুযোগ! এখন ১০ কোটি টাকা পর্যন্ত ঋণ মিলবে এই সরকারি স্কিমে

স্টার্টআপের জন্য বড়ো সুযোগ, এখন ১০ কোটি টাকা পর্যন্ত ঋণ মিলবে এই সরকারি স্কিমে। জানুন বিস্তারিত…

Published

on

বিবি ডেস্ক: স্টার্টআপের জন্য বড়ো সুযোগ। সেগুলিকে একটি নির্দিষ্ট সীমা পর্যন্ত জামানত-মুক্ত ঋণ (collateral-free loan) প্রদানের জন্য ক্রেডিট গ্যারান্টি স্কিমের (credit guarantee scheme) বিজ্ঞপ্তি দিয়েছে কেন্দ্রীয় সরকার।

ক্রেডিট গ্যারান্টি স্কিম ফর স্টার্টআপস

ডিপার্টমেন্ট ফর প্রমোশন অব ইন্ডাস্ট্রি অ্যান্ড ইন্টারনাল ট্রেড (DPIIT) একটি বিজ্ঞপ্তিতে বলেছে, ৬ অক্টোবর বা তার পরে একজন যোগ্য ঋণগ্রহীতার জন্য অনুমোদিত ঋণ সংক্রান্ত সুবিধাগুলি এই স্কিমের আওতাধীন হিসেবে বিবেচিত হবে। বলা হয়েছে, “ক্রেডিট গ্যারান্টি স্কিম ফর স্টার্টআপস (CGSS) অনুমোদন করেছে কেন্দ্রীয় সরকার। যাতে স্টার্টআপ হওয়ার জন্য যোগ্য ঋণগ্রহীতাদের পুঁজি জোগানোর জন্য সদস্য প্রতিষ্ঠানের (MI) মাধ্যমে ক্রেডিট গ্যারান্টি দেওয়া যায়।”

আশা করা হচ্ছে, এই স্কিমটি স্টার্টআপগুলির জন্য প্রয়োজনীয় জামানত-মুক্ত ঋণ তহবিল সরবরাহ করতে সহায়তা করবে। এমআই-এর মধ্যে আর্থিক মধ্যস্থতাকারী (ব্যাঙ্ক, আর্থিক প্রতিষ্ঠান, এনবিএফসি, এআইএফ) অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। যারা ঋণ প্রদান/বিনিয়োগে নিয়োজিত এবং স্কিমের অধীনে অনুমোদিত যোগ্যতার মানদণ্ডের সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ।

Advertisement

কারা এই সুবিধা পাওয়ার যোগ্য

যে সব স্বীকৃত স্টার্টআপ স্থিতিশীল রাজস্ব প্রবাহের পর্যায়ে পৌঁছেছে, যেমন ১২ মাসের মেয়াদে নিরীক্ষিত মাসিক বিবৃতি থেকে মূল্যায়ন করা হয়েছে, তারা এই সুবিধা পাওয়ার জন্য উপযুক্ত। যেগুলি কোনও ঋণ/বিনিয়োগকারী সংস্থার কাছে ঋণ খেলাপি নয় এবং রিজার্ভ ব্যাঙ্কের নির্দেশিকা অনুসারে নন-পারফর্মিং অ্যাসেট হিসাবে শ্রেণিবদ্ধ নয়, তারা এই স্কিমের সুবিধা পাওয়ার যোগ্য।

কভারেজের সীমা

বিভাগীয় বিবৃতিতে বলা হয়েছে, “প্রতি ঋণগ্রহীতার সর্বোচ্চ গ্যারান্টি কভার ১০ কোটি টাকার বেশি হবে না। এখানে যে ক্রেডিট সুবিধাটি কভার করা হচ্ছে, তা অন্য কোনও গ্যারান্টি স্কিমের আওতায় আনা উচিত নয়।”

পরিচালন পদ্ধতি

এই স্কিমের উদ্দেশে যোগ্য ঋণগ্রহীতাদের দেওয়া ঋণ বা ঋণ খেলাপির বিরুদ্ধে অর্থপ্রদানের গ্যারান্টি দেওয়ার উদ্দেশ্যে ভারত সরকার একটি ট্রাস্ট বা তহবিল গঠন করবে। ওই বোর্ডের ট্রাস্টি হিসেবে থাকবে বোর্ড অব ন্যাশনাল ক্রেডিট গ্যারান্টি ট্রাস্টি কোম্পানি লিমিটেড। এছাড়াও ট্রাস্টের বিষয়গুলো তদারকি করার জন্য ডিপিআইআইটি-র গঠিত একটি ব্যবস্থাপনা কমিটি থাকবে। ট্রাস্টের কার্যকারিতা পর্যালোচনা, তত্ত্বাবধান ও পর্যবেক্ষণের জন্য দায়ী থাকবে ওই কমিটি। স্কিম সম্পর্কিত বিস্তৃত নীতি সংক্রান্ত বিষয়ে ট্রাস্টকে প্রয়োজনীয় নির্দেশ দেবে তারাই।

Advertisement

আরও পড়ুন: ডলারের তুলনায় রুপির দরপতন নিয়ন্ত্রণে গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ নিতে চলেছে আরবিআই!

Advertisement
Click to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

খবর

মহিলা পরিচালিত ভারতীয় স্টার্টআপগুলির দিকে সাহায্যের হাত বাড়াল গুগল

আবেদনের সংখ্যা ছিল প্রায় ৪০০। সেখান থেকে বেছে নেওয়া হল ২০টিকে। মহিলা পরিচালিত বা মহিলাদের দ্বারা তৈরি করা সেই বিশেষ ২০টি ভারতীয় স্টার্টআপকে বিশেষ ভাবে সাহায্য করার প্রতিশ্রুতি দিল গুগল।

Published

on

বিবি ডেস্ক: আবেদনের সংখ্যা ছিল প্রায় ৪০০। সেখান থেকে বেছে নেওয়া হল ২০টিকে। মহিলা পরিচালিত বা মহিলাদের দ্বারা তৈরি করা সেই বিশেষ ২০টি ভারতীয় স্টার্টআপকে (Startup) বিশেষ ভাবে সাহায্য করার প্রতিশ্রুতি দিল গুগল (Google)। সোমবার এই ঘোষণা করা হয়েছে ‘গুগল ফর স্টার্টআপস অ্যাকসিলারেটর ইন্ডিয়া উওম্যান ফাউন্ডার্স’-এর প্রথম সংস্করণে

কী ভাবে সাহায্য

এই সব স্টার্টআপগুলিকে কী ভাবে সাহায্য করবে গুগল (Google)? প্রযুক্তির ক্ষেত্রে এই সুবৃহৎ সংস্থার তরফে জানানো হয়েছে যে, বিভিন্ন নেটওয়ার্কের সঙ্গে যোগাযোগ করা, বিনিয়োগ যোগাড় করা, কঠিন পরিস্থিতির সঙ্গে লড়াই করা, যে কোনও পরিস্থিতিতে পথ দেখানো-সহ প্রায় সব ক্ষেত্রেই এই স্টার্টআপগুলিকে (Startup) সাহায্য করা হবে। এক কথায় বলতে গেলে, যে সব জায়গায় সামাজিক ভাবে মহিলারা সমস্যায় পড়তে পারেন, প্রায় সব ক্ষেত্রেই তাদের সংস্থাকে সাহায্য করবে গুগল (Google)।

এ ছাড়া আরও বিভিন্ন ক্ষেত্র যেমন, ওয়ার্কশপের ব্যবস্থা করা, কৃত্তিম বুদ্ধিমত্তা (AI/ML), ক্লাউড (Cloud), ইউএক্স (UX), অ্যান্ড্রয়েড (Android), ওয়েব, পণ্য উৎপাদন এবং সেই সংক্রান্ত পরিকল্পনার ক্ষেত্রেও মহিলাদের সাহায্য করা হবে বলে জানিয়েছে গুগল।

Advertisement

কারা সাহায্য পাচ্ছে

যে সব স্টার্টআপকে বেছে নেওয়া হয়েছে তার মধ্যে রয়েছে অ্যাসপায়ার ফর হার (Aspire for Her), ব্রাউন লিভিং (Brown Living), কললার্ন এডুকেশন (CoLLearn Education), কমিউডেল (Commudle), ডাবভার্স (Dubverse), এলডা হেলথ (Elda Health), ফিটবটস (Fitbots) ইত্যাদি।

কী বলছে গুগল

গুগলের তরফ থেকে বলে হয়েছে, ‘আমরা চাই ভারতের বিভিন্ন অংশের মেয়েরা এগিয়ে আসুক। ভারতের ডিজিটাল কর্মক্ষমতাকে মেয়েরা আরও বেশি করে কাজে লাগাক। এই বিশাল কর্মযজ্ঞের আমরাও একটা ছোট অংশ হতে চাই।’

আরও পড়ুন: ধনতেরাস ও দীপাবলিতে ৫৩ হাজার ছুঁতে পারে সোনা, বিয়ের মরশুমে লম্বা লাফ

Advertisement
Continue Reading

খবর

একের পর এক মাইলফলক! উদ্‌যাপনে বাংলার স্টার্ট-আপ VBRIDGE

বাড়ছে স্টার্ট-আপ। লক্ষ্যে না পৌঁছানো পর্যন্ত স্বপ্ন হাতছাড়া করতে নারাজ তাঁরা। সারা দেশের মতোই পশ্চিমবঙ্গেও এর কোনো ব্যতিক্রম নেই। যেমন, এ রাজ্যে এই তালিকায় ইতিমধ্যেই উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে ভিব্রিজ।

Published

on

কলকাতা: বদলে যাচ্ছে শিল্পাঙ্গন। বদলের অন্যতম বাহক তরুণরা। গত কয়েক বছর ধরে শিল্পাঙ্গনে রাজত্ব করছেন তরুণরা। বাড়ছে স্টার্ট-আপ। লক্ষ্যে না পৌঁছানো পর্যন্ত স্বপ্ন হাতছাড়া করতে নারাজ তাঁরা। সারা দেশের মতোই পশ্চিমবঙ্গেও এর কোনো ব্যতিক্রম নেই। যেমন, এ রাজ্যে এই তালিকায় ইতিমধ্যেই উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে ভিব্রিজ (VBRIDGE)।

এক নজরে ভিব্রিজ

ভিব্রিজ হল একটি আর্কিটেকচারাল স্টার্ট-আপ। ৩০ বছরেরও কম বয়সি দুই তরুণ গড়ে তুলেছেন এই স্টার্ট-আপটি। তাঁদের অফুরন্ত উৎসাহেই এই সংস্থা এখন একের পর এক সাফল্যের জেরে উঠে এসেছে খবরের শিরোনামে।

জৌগ্রামে মডেল ভিলেজ ডিজাইন করা হোক বা কোন্নগরে কোভিড স্ট্রিট আর্ট, নিউ টাউন থেকে সারাদেশের কোভিড হাসপাতালে থ্রিডি ইলিউশন আর্ট গার্ড রেল এই স্টার্ট-আপকে সাধারণের কাছে আরও বেশি করে পরিচিতি পাইয়ে দিয়েছে।

পাশাপাশি, সাম্প্রতিক অতীতে ইটের পরিবর্তে ইস্পাতের ব্যবহার করে ইতিমধ্যেই নজর কেড়েছে স্টার্ট-আপটি। এখন ভুটানের পারো বিমানবন্দর (Paro airport, Bhutan) ডিজাইনের কাজ হাসিল করে আস্থা অর্জনে সক্ষম হয়েছে ভিব্রিজ।

Advertisement

দুই তরুণের স্বপ্ন

নিজের কাজের দীর্ঘ তালিকায় এই আন্তর্জাতিক প্রকল্পটিকে একটি বিশাল মাইলফলক হিসেবে অভিহিত করেছে ভিব্রিজ। ভাইভ্যাস (VIVACE, VBRIDGE’s Integrated Vision, Architecture, Conclave and Exhibition) শিরোনামের একটি প্রদর্শনীতে এর উদ্‌যাপনও করা হল সম্প্রতি।

এ ছাড়াও আরেকটি উল্লেখযোগ্য প্রকল্প হাতে পেয়েছে ভিব্রিজ। সেটা হল সল্টলেক সেক্টর ফাইভের প্রবেশপথে আইকনিক গেট ডিজাইনের কাজ। ওই প্রদর্শনী ও কনক্লেভে উপস্থিত ছিলেন দেশের সেরা শিল্পপতি, সরকারী কর্মকর্তা এবং শিল্প বিশেষজ্ঞরা। যেখানে স্থাপত্যের ভবিষ্যৎ নিয়ে নিজেদের দৃষ্টিভঙ্গির কথা তুলে ধরেন বক্তারা।

নিজেদের সর্বশেষ কৃতিত্ব সম্পর্কে ভিব্রিজের সহ-প্রতিষ্ঠাতা অয়ন রায় বলেন, “ভিব্রিজ আমাদের স্বপ্ন। যা আর্কিটেকচার, ডিজাইন এবং ইঞ্জিনিয়ারিংকে উন্নত ভবিষ্যতের দিকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছে। এ ব্যাপারে আমরা জাতীয় এবং বিশ্বজনীন, উভয় ধারণাই অনুসরণ করছি।”

ভিব্রিজের আরেক সহ-প্রতিষ্ঠাতা সৌম্যদীপ দাস বলেন, “ভবিষ্যতে প্রতিটা অ্যাসাইনমেন্টে গবেষণা এবং উন্নয়নের উপর আরও ফোকাস করবে ভিব্রিজ। সেটা নির্মাণ ক্ষেত্রে উন্নত প্রযুক্তি হোক বা সামাজিক উন্নয়ন প্রকল্প। পাশাপাশি ব্যবসার বহর আরও বিস্তারের জন্য বিনিয়োগ বৃদ্ধির পরিকল্পনাও রয়েছে”।

Advertisement

আরও পড়ুন: দেশ জুড়ে তৈরি হবে ১০ হাজার চার্জিং পয়েন্ট, সৌজন্যে শেল

Continue Reading

স্টার্টআপ

জিপলাইনে যোগ দিলেন প্রাক্তন টেসলা কর্তা 

জিপলাইন (Zipline) একটি সিলিকন ভ্যালি-ভিত্তিক রোবোটিক্স কোম্পানি যেটি ড্রোন ব্যবহার করে দুর্গম এলাকায় পণ্য সরবরাহ করে।

Published

on

ড্রোনের মাধ্যমে পণ্য পরিবহণকারী স্টার্টআপ সংস্থা জিপলাইনে (Zipline) যোগ দিতে চলেছেন টেসলার (Tesla) প্রাক্তন চিফ বিজনেস অ্যান্ড ফিনান্সিয়াল অফিসার (CFO) দীপক আহুজা। জিপলাইনের তরফে এই ঘোষণা করা হয়েছে।

জিপলাইন (Zipline) একটি সিলিকন ভ্যালি-ভিত্তিক রোবোটিক্স কোম্পানি যেটি ড্রোন ব্যবহার করে দুর্গম এলাকায় পণ্য সরবরাহ করে। এটি প্রাথমিক ভাবে চিকিৎসা সরঞ্জাম সরবরাহের উপর নজর দিয়েছিল। কিন্তু এখন এটি ই-কমার্স এবং খাদ্য সরবরাহের ক্ষেত্রে নিজেদের প্রসারিত করছে। সংস্থাটি আগে রোয়ান্ডা সরকারের সঙ্গে চিকিৎসা সরবরাহের জন্য চুক্তি করেছিল। ঘানায় কোভিড টিকাও বিতরণ  করেছে তারা। গত দু’বছরে তিন থেকে সাতটি দেশে নিজেদের কার্যক্রম সম্প্রসারিত করেছে। এমনটাই দাবি করা হয়েছে সংস্থার তরফে।

আহুজা ২০১৭ সালের মার্চ থেকে ২০১৯ সালের মার্চ পর্যন্ত টেসলার সিএফও হিসাবে দায়িত্ব পালন করেছেন। তিনি ২০০৮ সালে এই সংস্থার যোগদান করেছিলেন। ২০১৫ সালে সাময়িক ভাবে সংস্থা ছেড়ে চলে যান।

Advertisement

এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে অহুজা বলেন, ‘জিপলাইনের  (Zipline) টিম যে বিশ্বমানের প্রযুক্তি তৈরি করছে তার সঙ্গে খুব কম সংস্থারই তুলনা করা যায়। আমি এই ধরনের উচ্চমানের কাজ খুবই কম দেখেছি। এটি জিপলাইনের জন্য একটি দুর্দান্ত সময়। আমি তাদের সঙ্গে যোগ দিতে পেরে রোমাঞ্চিত।

আহুজা ৩০ সেপ্টেম্বর জিপলাইনে যোগ দেবেন।

আরও পড়ুন: ২০০ কোটি টাকা বিনিয়োগ! বৈদ্যুতিন গাড়ির বাজারে প্রবেশ করল এমএমএফ (MMF)

Advertisement
Continue Reading

Trending