অবসরগ্রহণের পর হোম লোনের আবেদন করবেন? এই ৬টি বিষয় মাথায় রাখুন

অবসর গ্রহণের পর যদি হোম লোনের আবেদন করেন, তবে তা সহজে পাওয়া যায় না। ব্যাঙ্কগুলি অবসরপ্রাপ্ত ব্যক্তিকে সাধারণত হোম লোন দিতে দ্বিধা করে।

বিবি ডেস্ক : অনেকেরই জীবনে স্বপ্ন থাকে একটি মনের মতো বাড়ি। কর্মরত অবস্থায় অধিকাংশ সময় সেই স্বপ্ন পূরণ হয় না নানা কারণে। অনেকেই চেষ্টা করেন অবসর গ্রহণের পর হোম লোন নিয়ে একটি মনের মতো বাড়ি করতে। কিন্তু, ব্যাঙ্কগুলি সাধারণ ভাবে অবসরপ্রাপ্ত ব্যক্তিকে লোন দিতে চায় না। তবে একেবারেই যে দেয় না তেমনটাও নয়। তাই একটু বুঝেশুনে এবং প্রস্তুতি নিয়ে লোনের জন্য আবেদন করলে হোম লোন পেয়েও যেতে পারেন। হোম লোন পেতে গেলে প্রবীণ নাগরিককে কতগুলি শর্তপূরণ করতে হয়। আজ আপনাকে আমরা এমন কতগুলি গুরুত্বপূর্ণ পরামর্শ দেবে যাতে আপনার স্বপ্নপূরণ ক্ষেত্রে সহায়তা হতে পারে।

যোগ্যতা

হোম লোনের জন্য আবেদনের আগে বয়স, আয় এবং অন্যান্য দিকগুলির ভিত্তিতে যোগ্যতা যাচাই করে নেওয়া উচিত। ব্যাঙ্ক অনুযায়ী এই যোগ্যতার মান আলাদা আলাদা হতে পারে। ব্যাঙ্কগুলি মনে করে, আবেদনকারী এমন পেনশনভোগী হবেন, যিনি নিয়মিত ভাবে একটি নির্দিষ্ট মেয়াদে পেশন পাবেন। আবেদনকারী বয়স ৭০ বছরের বেশি হওয়া উচিত নয়। তাঁর ৭৫ বছর হওয়ার আগে তিনি যাতে সেই ঋণ শোধ করতে পারেন। তাই এটি বলাই যায় ৭০ শতাংশ প্রবীণ আবেদনকারী ৫ বছরের জন্য গৃহঋণ পেতেই পারেন।

সহ-আবেদনকারী

সহ-আবেদনকারী যোগ করলে অবসরের পর গৃহঋণ পেতে সুবিধা হয়। সেক্ষেত্রে ঋণদানকারী সংস্থারও ঝুঁকি কম থাকে। তবে, সহ-আবেদনকারী ব্যক্তির আয় স্থিতিশীল হতে হবে এবং তাঁর যেন ভালো ক্রেডিট স্কোর থাকে। অবসরের পর ঋণ নিলে ঋণের অঙ্ক কম থাকে। তবে যদি এমন সহ-আবেদনকারী যুক্ত করা যায়, যার আয় বেশি, সেক্ষেত্র ঋণের পরিমাণ বাড়তে পারে। কম সুদে দীর্ঘমেয়াদী হোম লোন পাওয়ারও সম্ভাবনা বাড়ে

কম লোন নেওয়ার চেষ্টা করুন

বাড়ি কেনার ক্ষেত্রে নিজের প্রদেয় অর্থের পরিমাণ বাড়ান, কম লোন নিন। এর ফলে ইএমআই-ও কম হবে এবং আপনার ঋণ পাওয়ার সম্ভাবনাও বাড়বে। ইএমআই কম হলে পরিশোধেও সহজ হবে।

loan

সুরক্ষিত লোন নিন

কোনো সম্পত্তিকে গ্যারেন্টি হিসাবে রেখে লোন নেওয়াকে সুরক্ষিত লোন বলে। এই ধরনের ঋনের ক্ষেত্রে ব্যাঙ্কগুলির ঝুঁকি কম থাকে। সুরক্ষিত লোনের নিয়মগুলি সাধারণ ভাবে অসুরক্ষিত লোনের নিয়মের থেকে কিছুটা সহজ। সম্পতি, সোনা, শেয়ার, মিউচ্যুয়াল ফান্ড বা পিপিএফ জমা রেখেও লোন নেওয়া যেতে পারে।

ক্রেডিট স্কোর

অবসরপ্রাপ্তদের জন্য ভালো ক্রেডিট স্কোর খুবই গুরুত্বপূর্ণ। বেশির ভাগ ব্যাঙ্কগুলি ৭৫০ বা তার বেশ ক্রেডিট স্কোরকে ঋণ পাওয়ার ক্ষেত্রে যোগ্য হিসাবে বিবেচনা করে।

সরকারি ব্যাঙ্কের কাছে যান

আপনি যদি পেনশনভোগী হন, তবে অবসর গ্রহণের পর ঋণ নেওয়ার জন্য সরকারি ব্যাঙ্কে যান। সরকারি ব্যাঙ্কগুলি পেনশন ভোগীদের ঋণ দিয়ে থাকে যেগুলি যোগ্যতা মান বেশ সহজ। পার্সোনাল লোনের তুলনায় এদের সুদের হার বেশ কম।

আরও পড়তে পারেন : করোনাকালে এই ৩টি জায়গায় বিনিয়োগ করুন, দু:সময়ে কাজে লাগবে

Be the first to comment

মন্তব্য করুন

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.