আগামী ডিসেম্বরের মধ্যেই ভারতে স্মার্টফোন শিল্পে ৫০ হাজার জনের কর্মসংস্থানের সম্ভাবনা

বাংলাbiz ডেস্ক: করোনার আবহে গোটা বিশ্বে চাকরির জন্য যখন হাহাকার, কোটি কোটি মানুষ যখন কাজ হারাচ্ছেন, তখন স্মার্টফোনের শিল্পে একটা আশার আলো দেখা যাচ্ছে। ডিসেম্বর শেষ হওয়ার আগেই ভারতে এই শিল্পে অন্তত ৫০ হাজার মানুষের কর্মসংস্থান হতে পারে বলে জানা গিয়েছে। গোটা ব্যাপারটিতে কেন্দ্রের সহায়তা রয়েছে।

ফক্সকন, উইস্টন, স্যামসাং, ডিক্সন আর লাভার মতো দেশি, বিদেশি স্মার্টফোন সংস্থাগুলি বছর শেষের আগেই হয় স্মার্টফোনের উৎপাদনক্ষমতা ব্যাপক ভাবে বাড়াতে চাইছে আর না হয় কেন্দ্রের ‘প্রোডাকশন লিঙ্ক্‌ড ইনসেনটিভ’ (পিএলআই) প্রকল্পের সহায়তায় উৎপাদনকেন্দ্র স্থাপন করতে চলেছে। সেই কারণেই কিছু দিনের মধ্যেই ব্যাপক হারে নিয়োগ প্রক্রিয়া শুরু করবে তারা।

বৈদ্যুতিন সামগ্রী ব্যাপক হারে উৎপাদনের জন্য গত ১ এপ্রিল পিএলআই সংক্রান্ত নির্দেশিকা জারি করে কেন্দ্রীয় সরকারের বৈদ্যুতিন ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রক। অভ্যন্তরীণ উৎপাদনে জোয়ার আনতে এবং মোবাইল ফোন উৎপাদনের জন্য প্রচুর পরিমাণে বিনিয়োগ টানতে সরকার ওই প্রকল্প অনুযায়ী ‘প্রোডাকশন লিঙ্ক্‌ড ইনসেনটিভ’-এর ব্যবস্থা করেছে।

ইন্ডিয়ান সেলুলার অ্যান্ড ইলেকট্রনিক অ্যাসোসিয়েশনের প্রেসিডেন্ট পঙ্কজ মহেন্দ্রু বলেন, ২০১৪ থেকে ২০১৯-এর মধ্যে দেশে মোবাইল ফোন শিল্পে উৎপাদন ১,১০০ শতাংশ বেড়েছে। এই ব্যাপক ভাবে উৎপাদনের জন্য শুধু দেশেই নয়, বিদেশেও মোবাইল রফতানি করেছে ভারত।

মহেন্দ্রুর মতে, এই শিল্প অতি দ্রুত এগিয়ে যাচ্ছিল। কিন্তু করোনা অতিমারির কারণে কিছুটা বিলম্ব হয়ে গেছে। তা সত্ত্বেও এই বছর শেষ হওয়ার আগেই নতুন করে ৫০ হাজার কর্মী নিয়োগের আশা করছে স্মার্টফোন শিল্প। কোভিডের দাপট কমে যাওয়ার পর অর্থনীতি আরও কিছুটা চাঙ্গা হলে এই শিল্পের অগ্রগতি আরও বাড়বে।

দেশের বৈদ্যুতিন সামগ্রী উৎপাদনে গতি আনতে গত জুনে ৫০ হাজার কোটি টাকার ‘ইলেকট্রনিক ম্যানুফ্যাকচারিং স্কিম’-এর সূচনা করে কেন্দ্র। এই প্রসঙ্গে কেন্দ্রীয় তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রী রবিশঙ্কর প্রসাদ জানান, ভারতকে উৎপাদনের কেন্দ্রে পরিণত করতে এই স্কিমের সূচনা করা হয়েছে।

Be the first to comment

মন্তব্য করুন

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.