Connect with us

বিজ্ঞান-প্রযুক্তি

নিজের আধার বায়োমেট্রিক তথ্য কী ভাবে লক বা আনলক করবেন?

Published

on

বাংলাbiz ডেস্ক: কারও আধার নম্বর যাতে অপব্যবহার না করা যায় তার জন্য ইউনিক আইডেন্টিফিকেশন অথরিটি অব ইন্ডিয়া (UIDAI) তাদের সংগৃহীত বায়োমেট্রিক তথ্য যেমন, আঙুলের ছাপ এবং আইরিস স্ক্যানের মতো তথ্যগুলি লক করার ব্যবস্থা করেছে।

ইউআইডিএআই-এর ওয়েবসাইটে প্রকাশিত তথ্য অনুযায়ী, এই ফিচারটির মাধ্যমে যে কেউ নিজের বায়োমেট্রিক তথ্য লক অথবা আনলক করতে পারেন।

কী কী প্রয়োজন?

নিজের আধার নম্বরের বায়োমেট্রিক তথ্য লক করার জন্য অবশ্যই একটি মোবাইল নম্বর আধারের সঙ্গে রেজিস্টার থাকতে হবে।

যদি আপনার মোবাইল নম্বরটি আধারের সঙ্গে রেজিস্টার না থাকে, তা হলে এই পরিষেবা পাওয়ার জন্য আধার কার্ডটিকে আপডেট করতে হবে।

মাথায় রাখবেন: এক বার আধার তথ্য লক করার পর, তা আর কেউ অ্যাক্সেস করতে পারবেন না। এমনকি আপনি নিজেও কোনো কাজে অথেন্টিকেশন করাতে পারবেন না। আনলক করার পরার পরই তা করা যাবে। অতএব, লক করার আগে ভেবেচিন্তেই করবেন।

কী ভাবে করবেন?

প্রথম পদক্ষেপইউআইডিএআই-এর ওয়েবসাইট www.uidai.gov.in-এ যেতে হবে।

দ্বিতীয় পদক্ষেপ: ‘My Aadhaar’ ট্যাবের মধ্যে ‘Aadhaar services’ অপশনটি সিলেক্ট করে ‘Lock/Unlock biometrics’-এ যেতে হবে।

তৃতীয় পদক্ষেপ: স্ক্রিনে একটি নতুন ট্যাব খুলে যাবে। নীচের টিক বাক্সে ক্লিক করে আধার তথ্য লক করতে চাইছেন কি না, তা নিশ্চিত করতে হবে।

চতুর্থ পদক্ষেপ: নিজের আধার নম্বর (Aadhaar number) এবং ক্যাপচা কোড দিতে হবে। ওয়ান টাইম পাসওয়ার্ড বা ওটিপি (OTP) আসবে। মোবাইলে আসা ওই ওটিপি ১০ মিনিট পর্যন্ত বৈধ থাকবে।

পঞ্চম পদক্ষেপ: সঠিক ওটিপি দেওয়ার পর ইউআইডিএআই আপনাকে বায়োমেট্রিক তথ্য লক করা নেই বলে জানিয়ে দেবে। একই সঙ্গে বায়োমেট্রিক অথেন্টিকেশন লক এবং আনলক করার ফিচার সক্রিয় করার কথা জানাবে।

আপনি সম্মত থাকলে ‘Enable Locking Feature’-এ ক্লিক করুন।

এটি সিলেক্ট করার পরই বায়োমেট্রিক তথ্য লক হয়ে যাবে। আঙুলের ছাপ অথবা চোখের আইরিশ তথ্য দিয়ে আর কোনো অথেন্টিকেশন করা যাবে না। করতে গেলে ‘৩৩০’ এরর কোড দেখাবে।

কী ভাবে আনলক করবেন?

ষষ্ঠ পদক্ষেপ: একই ভাবে ওয়েবসাইটে গিয়ে ‘Unlock Biometric’-এ ক্লিক করতে হবে। আনলক হতে কয়েক মিনিট সময় লাগে।

তবে যদি আপনি চিরস্থায়ী ভাবে বায়োমেট্রিক তথ্য আনলক করতে চান, তা হলে ‘Disable Locking Feature’-এ ক্লিক করুন।

এটি সিলেক্ট করলে আপনি বরাবরের জন্য অতিরিক্ত সময় ব্যয় না করেই অথেন্টিকেশনের জন্য বায়োমেট্রিক তথ্য ব্যবহার করতে পারবেন।

আরও পড়তে পারেন: অনলাইনে কী ভাবে মোবাইল নম্বরের সঙ্গে আধার কার্ড লিঙ্ক করবেন?

Advertisement
Click to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

বিজ্ঞান-প্রযুক্তি

এই প্রথম মাত্র ৬১ টাকায় ফাইভ-জি ডেটা ভাইচার নিয়ে এল জিও

এই প্রথম অফিসিয়াল ফাইভ-জি ডেটা প্ল্যানের দাম শুধুমাত্র ৬১ টাকা রেখেছে জিও।

Published

on

সাশ্রয়ী মূল্যের ফাইভ-জি ডেটা প্যাক চালু করেছে রিলায়েন্স জিও (Reliance Jio)। এই প্যাকের দাম রাখা হয়েছে ৬১ টাকা। এই প্ল্যানের সঙ্গে ফাইভ-জি হাই-স্পিড ইন্টারনেট ডেটাও দিচ্ছে সংস্থা। তবে এই পরিষেবাটি শুধুমাত্র তাঁদের জন্য, যাঁরা জিও-র পক্ষ থেকে ওয়েলকাম অফার মেসেজ পেয়েছেন।

এই প্রথম অফিসিয়াল ফাইভ-জি ডেটা প্ল্যানের দাম শুধুমাত্র ৬১ টাকা রেখেছে জিও। এই প্ল্যানের মাধ্যমে ব্যবহারকারীরা ৬ জিবি ফাইভ-জি ডেটা পেতে পারেন। তবে মাথায় রাখতে হবে, যে সমস্ত জিও ব্যবহারকারীরা ওয়েলকাম অফার পেয়েছেন, তাঁরা এই সুবিধা পেতে পারেন।

৬১ টাকার এই প্ল্যানে গ্রাহকরা ৬ জিবি ডেটা পাবেন, এটা মূলত একটি ডেটা ভাউচার প্ল্যান। এতে, ৬ জিবি ফাইভ-জি ডেটা ছাড়া গ্রাহকদের অন্য কোনো সুবিধা দেওয়া হচ্ছে না।

অর্থাৎ এই প্ল্যানে কোনো ভ্যালিডিটি সুবিধা দেওয়া হবে না। নিয়মিত প্ল্যানটি সক্রিয় থাকা পর্যন্ত এই ভাউচারটি কাজ করবে।

এই প্ল্যানটি ছাড়াও, ১১৯, ১৪৯, ১৭৯, ১৯৯ এবং ২০৯ টাকার প্ল্যানও লঞ্চ করেছে জিও। সক্রিয় রিচার্জ প্ল্যান পর্যন্ত এগুলির বৈধতা থাকবে। এর মধ্যেও ব্যবহারকারীরা ৬ জিবি হাই-স্পিড ফাইভ-জি ইন্টারনেট ডেটা পাবেন।

প্রসঙ্গত, কয়েকটি শহরে নিজের ফাইভ-জি পরিষেবা শুরু করেছে জিও। এখন ধীরে ধীরে নিজের কভারেজ প্রসারিত করছে সংস্থা। চলতি বছরের জুন মাসের মধ্যেই পুরো কলকাতা এই পরিষেবার আওতায় আসবে বলে ইতিমধ্যে জানিয়েছে সংস্থা। কলকাতা ছাড়াও শিলিগুড়িতেও হাই-স্পিড ডেটা পরিষেবা পাবেন জিও ফাইভ-জি ব্যবহারকারীরা।

আরও পড়ুন: কর বাঁচাতে ভরসা রাখতে পারেন ইএলএসএস-এর উপর, কী ভাবে কাজ করে এই প্রকল্প

Continue Reading

খবর

এখন নথি না থাকলেও আধারে ঠিকানা পরিবর্তন করা যাবে, জানুন পদ্ধতি

আধার ব্যবহারকারীরা সহজেই নতুন ঠিকানার কোনো নথি ছাড়াই আধার কার্ডে ঠিকানা পরিবর্তন বা আপডেট করতে সক্ষম হবেন।

Published

on

আধার কার্ডে ঠিকানা আপডেট বা পরিবর্তন করার জন্য একটি নতুন প্রক্রিয়া চালু করেছে ইউনিক আইডেন্টিফিকেশন অথরিটি অফ ইন্ডিয়া (UIDAI)। উল্লেখযোগ্য ভাবে, নতুন প্রক্রিয়ার মাধ্যমে, আধার ব্যবহারকারীরা সহজেই নতুন ঠিকানার কোনো নথি ছাড়াই আধার কার্ডে ঠিকানা পরিবর্তন বা আপডেট করতে সক্ষম হবেন। আগে আধার কার্ডে ঠিকানা পরিবর্তনের জন্য ইউআইডিএআই ওয়েবসাইটে নতুন ঠিকানার একটি প্রমাণ আপলোড করতে হতো।

পরিবারের প্রধানের সঙ্গে সম্পর্কের প্রমাণ

ইউআইডিএআই বিবৃতিতে বলা হয়েছে, “অনলাইনে আধারের ঠিকানা পরিবর্তন করতে গিয়ে অনেক সময় প্রয়োজনীয় নথি থাকে না অনেকের। কিন্তু বাসস্থান পরিবর্তনের সঙ্গেই এই কাজটি সেরে ফেলা গুরুত্বপূর্ণ। ফলে নতুন নিয়মে এই ধরনের সুবিধা লক্ষ লক্ষ মানুষের কাজে লাগবে”।

বর্তমানে আধারের ঠিকানা পরিবর্তন করার জন্য যে পদ্ধতি চালু রয়েছে, সেটাও থাকবে। একই সঙ্গে নতুন এই পদ্ধতি অবলম্বন করে ঠিকানা পরিবর্তনও করা যাবে। বিবৃতিতে আরও বলা হয়েছে, “১৮ বছরের বেশি বয়সি যে কোনো বাসিন্দা এই উদ্দেশ্যে একজন পরিবারের প্রধান হতে পারেন এবং এই প্রক্রিয়ার মাধ্যমে তাঁর বা তাঁর আত্মীয়দের সঙ্গে ঠিকানা আপডেট করতে পারেন”।

নতুন ঠিকানার নথি না লাগলেও এই প্রক্রিয়ায় আবেদনকারী এবং পরিবারের প্রধানের সম্পর্কের প্রমাণ জমা দিতে হবে। আধারে ঠিকানা পরিবর্তনটি সম্পর্কের প্রমাণপত্র জমা দিয়ে করা পারে যেমন –রেশন কার্ড, মার্কশিট, বিবাহের শংসাপত্র, পাসপোর্ট বা আবেদনকারী এবং পরিবারের প্রধান, উভয়ের নাম উল্লেখ রয়েছে, এমন কোনো প্রমাণ।

কত টাকা লাগবে

এর জন্য ফি লাগবে ৫০ টাকা। টাকা জমা দেওয়ার পর সার্ভিস রিকোয়েস্ট নম্বর (SRN) দেওয়া হবে আবেদনকারীকে। ঠিকানা আপাডেটের অবস্থান সম্পর্কে এসএমএস-এর মাধ্যমে জানিয়েও দেওয়া হবে। অনুরোধটি অনুমোদন করতে হবে পরিবারের প্রধানকে। বিজ্ঞপ্তি পাওয়ার ৩০ দিনের মধ্যে মাই আধার পোর্টালে (My Aadhaar portal) লগ-ইন করে সম্মতি জানাতে হবে। তার পরই আবেদন প্রক্রিয়াটি সম্পন্ন হবে।

তবে মনে রাখতে হবে, এই পদ্ধতিতে আবেদন বাতিল করার সুবিধাও রয়েছে। এটাও এসএমএস-এর মাধ্যমে করা যাবে। তবে আবেদনটি বাতিল করলে ফি হিসেবে জমা দেওয়া ৫০ টাকা আর ফেরত দেওয়া হবে না।

আরও পড়ুন: নতুন বছরে কী ভাবে ট্যাক্সের বোঝা কমাবেন, রইল টিপস

Continue Reading

খবর

কর্মসংস্থানের বড় সুযোগ, সাহায্য করছে এই সরকারি পোর্টাল

এনসিএস পোর্টালে এমন ১০ লক্ষেরও বেশি কর্মপ্রার্থী নাম নথিভুক্ত করেছেন, যাঁরা সেখান থেকেই অনেকে ভালো কাজেরও সুযোগ পেয়েছেন।

Published

on

দেশের বেকারত্ব দূর করতে কেন্দ্রীয় সরকার একাধিক পদক্ষেপ নিয়েছে। কর্মসংস্থানের সুযোগ সাধারণ যুবক-যুবতীদের কাছে পৌঁছে দিতে ২০১৫ সালের জুলাই মাসে ন্যাশনাল কেরিয়ার সার্ভিস (NCS) পোর্টাল চালু করেছিল কেন্দ্র। অসংখ্য তরুণ-তরুণী এই পোর্টাল থেকে সুবিধা নিয়ে চলেছেন। সারা দেশে প্লাম্বার, শিক্ষক এবং আইটি বিশেষজ্ঞের মতো শূন্য পদের তথ্য রয়েছে এই পোর্টালে।

ই-শ্রম নিবন্ধক এনসিএস পোর্টাল

শুক্রবার শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রকের জারি করা এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ই-শ্রম (e-Shram) নিবন্ধক এনসিএস পোর্টালে এমন ১০ লক্ষেরও বেশি কর্মপ্রার্থী নাম নথিভুক্ত করেছেন, যাঁরা সেখান থেকেই অনেকে ভালো কাজেরও সুযোগ পেয়েছেন। শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রী ভূপেন্দ্র যাদবের নেতৃত্বে সংসদীয় পরামর্শদাতা কমিটির বৈঠকে দেওয়া একটি বিবৃতিতে এ কথা বলা হয়েছে। বলে রাখা ভালো, ই-শ্রম পোর্টালটি ২০২১ সালের আগস্টে চালু করা হয়েছিল। যেখানে কর্মরতদের সঙ্গে শ্রমিক এবং অসংগঠিত ক্ষেত্রকে সাহায্য করার জন্য একটি ডাটাবেস তৈরি করা হয়। এখনও পর্যন্ত, প্রায় ২৮ কোটি ৫০ লক্ষ ই-শ্রম কার্ড ইস্যু করা হয়েছে।

বেসরকারি প্ল্যাটফর্মের সঙ্গে গাঁটছড়া

মন্ত্রক বলেছে, পোর্টালটি ২৭টি রাজ্য এবং মনস্টার ইন্ডিয়া, নকরি ডট কম, ফ্রেশার্সওয়ার্ল্ড, মেরা জব-এর মতো বেশ কয়েকটি বেসরকারি পোর্টালের সঙ্গেও একত্রিত হয়েছে। ওই বেসরকারি প্ল্যাটফর্মগুলিও চাকরি খুঁজে পেতে সাহায্য করে। একই সঙ্গে সরকারের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, জেলা পর্যায়ে কেরিয়ার সম্পর্কিত পরিষেবা প্রদানের জন্য ৩৭০টি মডেল কেরিয়ার সেন্টার স্থাপনেরও অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।

কী ভাবে নাম নথিভুক্ত করবেন

এনসিএস পোর্টালের অফিসিয়াল ওয়েবসাইট, ncs.gov.in-এ গিয়ে নিজের নাম নথিভুক্ত করতে পারেন। এছাড়াও, আপনি কাছের কোনো মডেল কেরিয়ার সেন্টার, কমন সার্ভিস সেন্টার বা পোস্ট অফিসে গিয়ে রেজিস্ট্রেশন করতে পারেন। রেজিস্ট্রেশনের সময় যে কোনো সহায়তার জন্য, 1800-425-1514 নম্বরে কল করে যাবতীয় বিষয় জেনে নিতে পারেন।

আরও পড়ুন: তিন মাসে সবচেয়ে বড় ধাক্কা, শেয়ার বাজারে ব্যাপক লোকসান বিনিয়োগকারীদের

Continue Reading

Trending