সংকটে পড়া অর্থনীতির হাল ফেরাতে আরও একটি প্যাকেজ ঘোষণা করতে পারেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী

নয়াদিল্লি: করোনা মহামারিতে দেশের অর্থনীতির নাজেহাল অবস্থা। সেই ধুঁকতে থাকা অর্থনীতির হাল ফেরাতে আরও একটি প্যাকেজ ঘোষণা করতে পারেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী (Narendra Modi)। যে সব কেন্দ্রীয় আধিকারিক বিষয়টির সঙ্গে যুক্ত রয়েছেন তাঁদের মতে, ১৩ আগস্ট বৃহস্পতিবারের মধ্যেই ওই ঘোষণা হতে পারে।

শুধু ভারতই নয়, কোভিড-১৯ মহামারিতে গোটা বিশ্ব অর্থনীতির বেহাল দশা। যে যার নিজের মতো করে পদক্ষেপ করছে অর্থনীতির হাল ফেরাতে। ভারতও তার ব্যতিক্রম নয়। ইতিমধ্যেই ভারতেও একাধিক আর্থিক প্যাকেজ ঘোষিত হয়েছে। খুব শীঘ্রই আরও একটি প্যাকেজ ঘোষণা করে ভেঙে পড়া অর্থনীতিকে জিইয়ে তোলার পদক্ষেপ করা হচ্ছে বলে ইকোনমিক্স টাইমস-এর একটি প্রতিবেদনে বলা হয়েছে।

জানা গিয়েছে, প্রধানমন্ত্রী যে প্যাকেজ ঘোষণা করতে চলেছেন তাতে কর প্রশাসন ঢেলে সাজার ব্যাপারটিও অন্তর্ভুক্ত হতে পারে।

করোনাজনিত মহামারি পরিস্থিতির সামাল দিতে কেন্দ্রীয় সরকার এর আগে ‘প্রধানমন্ত্রী গরিব কল্যাণ যোজনা’ এবং ‘আত্মনির্ভর ভারত’ নামে দু’টি প্যাকেজ ঘোষণা করেছে। নতুন প্যাকেজটিতে এই দুই প্রকল্পের ধারাবাহিকতা বজায় রাখা হতে পারে বলে জানা গিয়েছে।

আরও পড়ুন: কৃষিক্ষেত্রে পরিকাঠামো উন্নয়ন: ১লক্ষ কোটির মূলধন যোগান প্রকল্পের সূচনা করলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী     

এক সরকারি আধিকারিকের মন্তব্য উদ্ধৃত করে সংবাদ মাধ্যমটি জানিয়েছে, প্রথম দু’টি উদ্যোগ ছিল মহামারির প্রেক্ষিতে সাধারণ মানুষ এবং শিল্পকে স্বস্তি দেওয়ার। এ বারের প্যাকেজটিতে পরিকাঠামো পুনর্নির্মাণে মনোনিবেশ করা হবে।

এ বারের প্যাকেজে যে বিষয়গুলি থাকতে পারে তার মধ্যে রয়েছে একটি ডিজিটালি কেন্দ্রীভূত কর প্রশাসন, করদাতাদের অধিকার বাড়ানো, প্রতিরক্ষা সরঞ্জামের ক্রয় সংক্রান্ত নীতিকে সামনে রেখে মূল পরিকাঠামোগত প্রকল্পগুলিতে ব্যয় ত্বরান্বিত করা এবং একটি নির্দিষ্ট সময়সীমার মধ্যে তা শেষ করা ইত্যাদি।

মঙ্গলবার শিল্প সংক্রান্ত যে তথ্য প্রকাশিত হয়েছে তাতে দেখা যাচ্ছে, জুনে যে তিন মাস শেষ হয়েছে, তাতে শিল্প উৎপাদন ৩৬ শতাংশ হ্রাস পেয়েছে।  

গরিব কল্যাণ যোজনা

করোনাভাইরাস সংক্রমণের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে দরিদ্র মানুষদের সাহায্যের জন্য কেন্দ্রীয় সরকার ‘প্রধানমন্ত্রী গরিব কল্যাণ যোজনা’ প্রকল্প ঘোষণা করে। এই প্রকল্প অনুসারে বিনামূল্যে খাদ্যশস্য, মহিলাদের ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে সরাসরি নগদ স্থানান্তর, অভিবাসী শ্রমিকদের জন্য কর্মসংস্থান এবং পিপিএফে বিশেষ সুবিধা-সহ একাধিক উদ্যোগ ঘোষণা করা হয়।

কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারমন জানান, “প্রধানমন্ত্রী গরিব কল্যাণ যোজনায় ১ লক্ষ ৭০ হাজার কোটি টাকা প্রথম পর্যায়ে বরাদ্দ হয়েছে। গরিবদের জন্য নিরলস ভাবে কাজ করছে সরকার।”

আত্মনির্ভর ভারত

‘আত্মনির্ভর ভারত’ প্রকল্পে দেশীয় শিল্পগুলিকে চাঙ্গা করার লক্ষ্যে ২০ লক্ষ কোটি টাকার প্যাকেজ ঘোষণা করে কেন্দ্র, যা দেশের মোট অভ্যন্তরীণ উৎপাদনের (জিডিপি) প্রায় ১০ শতাংশ বলে দাবি করা হয়। ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প থেকে শুরু করে খনি, পশুপালন, মৎস্যচাষ, কৃষি-সহ সমস্ত ক্ষেত্রেই এই বিশাল পরিমাণ আর্থিক সহযোগিতার কথা ঘোষণা করা হয়।

Be the first to comment

মন্তব্য করুন

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.